এএফসি কাপ

কালোসার হ্যাটট্রিক, বসুন্ধরাকে বড় ব্যবধানে হারাল মোহনবাগান

প্রকাশ : ২২ মে ২০২২, ১৫:৫৩

সাহস ডেস্ক

বসুন্ধরা শুরুটা করেছিল দারুণ। শুরুর প্রথম মিনিটেই প্রতিপক্ষের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় তারা। নাইজেরিয়ান ম্যাথিউ চিনেডুর সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়া করে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাম পায়ে শট নেন মিগেল ফেরেইরা। এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের প্রচেষ্টা হতাশা জাগিয়ে থাকেনি লক্ষ্যে। পরে ম্যাচের ১১তম মিনিটের সময় প্রচণ্ড বৃষ্টি, ঝড়ো বাতাস ও বজ্রপাতের কারণে প্রায় ৩৫ মিনিটের মত খেলা বন্ধ থাকে। পূনরায় খেলা শুরু হওয়ার পর কিংসের ওপর দিয়ে বয়ে যায় লিস্টন কোলাসো-ঝড়। ২৯ মিনিটের ব্যবধানে হ্যাটট্রিক করেছেন ২৩ বছর বয়সী গোয়ানিজ ফরোয়ার্ড। এতে বড় ব্যবধানে হেরে এএফসি কাপের পরের পর্বে ওঠার আশা ফিকে হয়ে গেল বসুন্ধরা কিংসের।

শনিবার (২২ মে) কলকাতার সল্টলেক স্টেডিয়ামে আসরের 'ডি' গ্রুপের ম্যাচে মোহনবাগানের বিপক্ষে ৪-০ গোলে হেরেছে অস্কার ব্রুজোনের শিষ্যরা। মোহনবাগানের হয়ে কোলাসোর হ্যাটট্রিক ছাড়াও একটি গোল করেন ডেভিড উইলিয়ামস।

অল্প সময়ের মধ্যে দুবার ভাগ্যের ফেরে আক্ষেপে পুড়তে হয় বসুন্ধরাকে। ১৮তম মিনিটে রবসন রবিনহোর ফ্রি-কিক ডি-বক্সের ভেতরের জটলা এড়িয়ে বাধা পায় দূরের পোস্টে। ফিরতি বলে হেড করতে পারেননি গোলমুখে থাকা তারিক কাজী। তিন মিনিট পর অবিশ্বাস্য এক গোল পেতে পারতেন রাইট-ব্যাক রিমন হোসেন। তার বাঁ পায়ের দূরপাল্লার কোণাকুণি ভলি প্রতিহত হয় পোস্টে।

ম্যাচের ২৪তম মিনিটে রক্ষণের বিস্ময়কর ভুলে গোল হজম করে বসে বসুন্ধরা। সতীর্থের পাস ভারতীয় তারকা লিস্টন নিয়ন্ত্রণে নিতে ব্যর্থ হলে ডি-বক্সের ভেতরে বল বিপদমুক্ত করার সুযোগ ছিল বিশ্বনাথ ঘোষের। কিন্তু শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে বলে পা ছোঁয়ানোর আগেই পড়ে যান এই অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার। এরপর মোহনবাগানকে এগিয়ে দেওয়ার কাজটা অনায়াসে সারেন লিস্টন। এর সাত মিনিট পর ব্যবধান বাড়ায় ভারতের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। বসুন্ধরার ডিফেন্ডাররা মাঠের বেশ ওপরে উঠে গেলে জনি কাউকো নিজেদের অর্ধ থেকে লম্বা করে বল বাড়ান লিস্টনের উদ্দেশ্যে। বাধাহীনভাবে অনেকটা দৌড়ে ডি-বক্সে ঢুকে গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকোকে কাটিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। এতে ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বসুন্ধরা কিংস।

বিরতি থেকে ফিরে এসে ম্যাচের ৫০তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে শট নেন বসুন্ধরার ইয়াসিন আরাফাত। তার প্রচেষ্টা ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন মোহনবাগানের গোলরক্ষক আর্শ শাইখ। কিন্তু এই ইঙ্গিতের পর রক্ষণভাগের দুর্বলতায় ভেস্তে যায় ব্রুজোনের দলের ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন। তার তিন মিনিট পর কর্নার লাইনের কাছে বল হারিয়ে ফেলেন ইরানের ডিফেন্ডার খালিদ শাফিই। তিনি ভারসাম্য হারিয়ে মাটিতে পড়ে গেলে বল পেয়ে মানভীর সিং ক্রস করেন ডি-বক্সে। অরক্ষিত কোলাচো এরপর নিখুঁত শটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন। ৭৭তম বসুন্ধরার কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন বদলি অস্ট্রেলিয়ান ফরোয়ার্ড ডেভিড উইলিয়ামস। সতীর্থের পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে শরীর ঘুরিয়ে জিকোকে পরাস্ত করেন তিনি। পরে ম্যাচের বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হলে এই ৪-০ গোলের বড় জয় পায় মোহনবাগান আর বড় ব্যবধানে হেরে মাঠ ছাড়ে বসুন্ধরা কিংস।

দুই ম্যাচে সমান একটি করে জয় ও হারে বসুন্ধরার পয়েন্ট ৩। গত বুধবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাজিয়া স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন ক্লাবের বিপক্ষে ১-০ গোলে জিতেছিল তারা। সেদিনই গোকুলাম কেরালার কাছে ৪-২ গোলে হেরে যাওয়া মোহনবাগানের পয়েন্টও ৩। গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় তারা আছে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। গোকুলাম রয়েছে দুইয়ে। তিনে থাকা বসুন্ধরা গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মঙ্গলবার (২৪ মে) মুখোমুখি হবে গোকুলামের।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?