বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্ক টেস্ট সিরিজ

মুশফিকুর রহিম: মাইলফলকের পরেই সেঞ্চুরি

প্রকাশ : ১৮ মে ২০২২, ১৭:৪০

সাহস ডেস্ক

দেশের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে পাঁচ হাজারের মাইলফলকের কাছেই ছিলেন তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিম। দেশের হয়ে কে আগে এই মাইলফলকটি স্পর্শ করবেন সেটাই কৌতূহল। পাঁচ হাজারের মাইলফলক স্পর্শ করতে মুশফিকের দরকার ১৫ রান আর তামিমের ১৯। দুজনই অপরাজিত থাকলেও পেশির টানে আগের দিন ক্রিজ ছাড়তে হয় তামিমকে। এতে মুশফিকের জন্যই সুযোগটা বেশি ছিল। সে সুযোগটা কাজে লাগিয়ে দিনের প্রথম সেশনে দেশের হয়ে প্রথম ব্যাটর হিসেবে পাঁচ হাজার রানের মাইলফল স্পর্শ করলেন মুশফিকুর রহিম। পরে দ্বিতীয় সেশনে করেছেন আরেকটি উদযাপন, টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের অষ্টম সেঞ্চুরিটি তুলে নিয়ে।

২০০৫ সালে টেস্ট ক্রিকেটে মুশফিকের অভিষেক হয় ১৭ বছর বয়েসে। অভিষেকের পর ৮১তম টেস্টে ১৪৯ ইনিংসে এসে পাঁচ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন তিনি। মাইলফলকে পৌঁছাতে ২৬ হাফসেঞ্চুরি ও ৭ সেঞ্চুরি করেন। ৭ সেঞ্চুরির তিনটাকেই ডাবল সেঞ্চুরি পর্যন্ত নিতে পেরেছেন মুশফিক। ৫ হাজারে যেতে ১০ হাজার ৬১৪ বল খেলতে হয়েছে মুশফিককে। তার চেয়ে ১৫ টেস্ট কম খেলেই ৫ হাজারের কিনারে আছেন তামিম। প্রায় দুই হাজার বল কমও খেলেছেন দেশ সেরা এ ওপেনার। মুশফিক-তামিমের পেছনে থাকা সাকিব আল হাসানের রান এই টেস্টে নামার আগ পর্যন্ত ৪ হাজার ২৯।

প্রথম সেশনে মাইলফলক স্পর্শ করার পর নিজের ক্যারিয়ারের মন্থরতম শতকটিও পূর্ণ করেন মুশফিক। তিন অঙ্কের জন্য ২৭০ বল খেলেছেন তিনি। ম্যারাথন ইনিংসে বাউন্ডারি ছিল মাত্র ৪টি। সময়ের হিসাবে সাত ঘণ্টার বেশি ব্যাটিং করেছেন তিনি। এর আগে ২০১৭ সালে ভারতের বিপক্ষে হায়দরাবাদ টেস্টে ২৩৫ বল খেলে করা শতরানটি ছিল মুশফিকের মন্থরতম।

টেস্ট ক্রিকেটে মুশফিকের শতরানও এল দুই বছর অপেক্ষার পর। ২০২০ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০৩ রানের অপরাজিত ইনিংসটি ছিল মুশফিকের সর্বশেষ শতক। এরপর শতরানের খুব কাছে এসেছিল গত বছর ডিসেম্বরে পাকিস্তানের বিপক্ষে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের সেই টেস্টে তিনি ৯১ রান করে আউট হয়েছিলেন। এর পর থেকেই মুশফিক ভুগছিলেন রানখরায়। সর্বশেষ ৯ ইনিংসে মুশফিকের অর্ধশতক ছিল একটি। সে কারণে হয়তো শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এই শতরানটি মুশফিকের জন্য স্বস্তির সুবাতাস বয়ে আনবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?