টানা দুই হার, ১৯ বছরের রেকর্ডেও এমন হয়নি বার্সার

প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০২২, ১৬:৩৭

সাহস ডেস্ক

টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত থেকেও বার্সেলোনাকে নিয়ে চলছে সমালোচনার ঝড়। কারণ একটাই, উড়তে থাকা বার্সেলোনা এই সপ্তাহে টানা দুই ম্যাচ হেরেছে। ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ঘরের মাঠে জার্মান ক্লাব আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টের কাছে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ গোলে হারের পর স্প্যানিশ লা লিগায় নিচের সারির দল কাদিজের বিপক্ষেও ১-০ গোলে হেরেছে জাভির অধিনে থাকা কাতালান ক্লাবটি।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ক্যাম্প ন্যুয়ে কাদিজের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে শীর্ষে থাকা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ থেকে অনেক পিছনে পড়ে গেলো বার্সেলোনা। লা লিগায় বার্সাকে আগেও ধরাশায়ী করেছিল দলটি। সর্বশেষ চার দেখায় দুবারই জিতেছে কাদিস, অন্যটি হয়েছে ড্র।

এই পরাজয়ের মাধ্যমে অনাকাঙ্ক্ষিত এক রেকর্ডেও নাম লিখিয়েছেন তারা। ২০০৩ সালের পর এই প্রথম সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যু-তে টানা দুই ম্যাচ হারল কাতালান ক্লাবটি। ২০০৩ সালের এপ্রিলে লা লিগার ম্যাচে দেপোর্তিভো লা করুনিয়ার বিপক্ষে ৪-২ গোলের হারার পর চ্যাম্পিয়নস লিগেও জুভেন্টাসের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরেছিল বার্সেলোনা। অর্থাৎ গত ১৯ বছরে যে রেকর্ডটা হয়নি, সেটাই হয়ে গিয়েছে গত রাতে। ১৯ বছর আগের সেই হারের চেয়ে এই দুই হার বার্সেলোনাকে কষ্ট দিচ্ছে বেশি। কয়েক মাস আগেই বার্সেলোনার কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেওয়া দলটার ঘরের ছেলে জাভি আর যাই হোক, এই রেকর্ডে অন্তত নাম লেখাতে চাননি!

পুরো ম্যাচে বার্সেলোনা খুব বেশি গোছানো ফুটবল খেলতে পারেনি। গোলের উদ্দেশ্যে ১৮ শট নিলেও তাতে ফল আসেনি। আক্রমণে বার্সা থেকে স্বাভাবিক কারণেই পিছিয়ে ছিল কাদিস। মূলত রক্ষণ শক্ত করে খেলে গেছে তারা। মাত্র ২৫ শতাংশ বল পজিশন রেখে কেবল চারটি শট লক্ষ্যে রাখতে পারে, যার একটি থেকে পেয়ে যায় কাঙ্ক্ষিত গোল।

প্রথমার্ধ্ব গোলবিহীন থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই গোল পেয়ে যায় কাদিস। ম্যাচের ৪৮তম মিনিটে সালভির ক্রসে পাওয়া বল রুবেন সাবরিনো করেছিলেন হেড। বার্সা গোলরক্ষক টের স্টেগেন পাঞ্চ করে বিপদমুক্ত করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু আবার বল পেয়ে যান সাবরিনো। তার শট হাত দিয়ে ঠেকাতে গিয়ে পুরোটা পারেননি, সুযোগ পেয়ে জালে জড়িয়ে দেন লুকাস পেরেস। পরে বাকি সময়ে গোলটি পরিশোধ করতে পারেনি জাভি বাহিনী। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বার্সেলোনাকে।

এই হারে ৩১ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে রিয়ালের থেকে অনেকটা দূরে থেকে টেবিলের দ্বিতীয়তে আছে বার্সেলোনা। ৩২ ম্যাচে ৭৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। ৩২ ম্যাচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ১৬তম স্থানে উঠে এসেছে কাদিজ। সমান ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে সেভিয়া। সমান ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চতুর্থ স্থানে আছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?