টানা নবম বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ

প্রকাশ : ০৯ মে ২০২১, ১৭:০৪

ক্রীড়া ডেস্ক

নিজেদের ৩২তম ম্যাচে সমিকরণটা এমনই ছিল যে, জিতলেই চ্যাম্পিয়ন। এমন সমিকরণ নিয়ে মাঠে নেমে হ্যাটট্রিক করে বসলেন রবার্ট লেভান্ডভস্কি। বরুসিয়া মনশেনগ্ল্যাডবাখকে বিদ্ধস্ত করে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই আবারো চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বায়ার্ন মিউনিক। আর এ নিয়ে টানা নবম ও সব মিলিয়ে রেকর্ড ৩০ বার জার্মানির শীর্ষ লিগ চ্যাম্পিয়ন হলো বাভারিয়ানরা।

শনিবার (৮ মে) রাতে বায়ার্নের মাঠ অ্যালিয়াঞ্জ অ্যারেনায় বরুসিয়া মনশেনগ্ল্যাডবাখকে ৬-০ গোলে বিদ্ধস্ত করেছে হ্যান্সি ফ্লিকের শিষ্যরা।

তবে শিরোপা নিশ্চিত করতে শুধু জয়টাই দরকার ছিল এমনটাই নয়। অন্য ম্যাচে টেবিলের পঞ্চম স্থানে থাকা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয়তে থাকা লাইপজিগকে হারতে হবে। আর সেটাই হয়েছে, লাইপজিগকে ৩-২ গোলে হারিয়ে টেবিলের তৃতীয়তে উঠে এসেছে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। আর এতেই বায়ার্নের শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যায়।

টানা নবম খেতাব পেলেও আগের মৌসুমের মতো ট্রেবল বা ত্রিমুকুট জিততে পারেনি মিউনিখের ক্লাবটি। গত বছর বুন্দেসলিগা, ডিএফবি-পোকাল এবং সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছিল তারা। ডিয়েটার হ্যান্সি ফ্লিকের হাত ধরে যেন নতুন করে ইউরোপের বড় শক্তি হয়ে উঠেছিল বায়ার্ন। কিন্তু হ্যান্সি ফ্লিক ক্লাব ছাড়ছেন। তিনি এবার হাল ধরবেন জার্মান জাতীয় দলের। অন্যদিকে নতুন মৌসুমে বায়ার্নের দায়িত্বে আসছেন মাত্র ৩৪ বছর বয়সি জুলিয়ান নাগেলসম্যান।

এদিন মাঠে নেমে জয়ের উপলক্ষটা দারুণ ভাবেই রাঙাল বায়ার্ন মিউনিখ। রবার্ট লেভান্ডভস্কি করেছেন হ্যাটট্রি। একটি করে গোল করেছেন টমাস মুলার, কিংসলে কুমান ও লেরয় সানে।

শুরুতেই গোল করে দলকে এগিয়ে দেন লেভান্ডভস্কি। ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে গোলটি করেন তিনি। পরে ২৩ মিনিটে গোল করে আবারো দলকে এগিয়ে দেন টমাস মুলার। ৩৪ মিনিটে আবারো গোল করেন লেভান্ডভস্কি। এরপর বিরতিতে যাওয়ার আগে আরেকবার এগিয়ে যায় বায়ার্ন। ম্যাচের ৪৪ মিনিটে গোলটি করেন কিংসলে কোম্যান। এই ৪-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বায়ার্ন মিউনিখ।

বিরতি থেকে ফিরে এসে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন লেভা। ম্যাচের ৬৬ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন লেভা। এ নিয়ে চলতি মৌসুমে ৩৭টি গোল গোল করে ফেললেন পোল্যান্ডের ফরোয়ার্ড রবার্ট লেভান্ডভস্কি।

রবার্ট লেভান্ডভস্কি

তার ৯ মিনিট পরে বাজে ট্যাকেল করলে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ট্যাঙ্গাই নিয়ানজু। এর ১০ মিনিট পরে শেষ গোলটি করেন লেরয় সানে। অবশেষে এই ৬-০ গোলের বিশাল জয় নিয়ে হাতে দুই ম্যাচ বাকি থাকতেই শিরোপা নিশ্চিত করে বায়ার্ন মিউনিখ।

এ বছর এখন পর্যন্ত বুন্দেসলিগায় মোট ৯২ গোল করেছে বায়ার্ন। এর সিংহভাগ কৃতিত্ব প্রাপ্য অবশ্যই স্ট্রাইকার রবার্ট লেভান্ডভস্কির। চোট পেয়ে বসে আছেন বেশ কিছুদিন হল, অথচ এর মধ্যেই ৩৭টা গোল করে বসে আছেন। দ্বিতীয় স্থানে আছেন তরুণ তারকা আরলিং হালান্ড, তার গোলের সংখ্যা ২৫। গোলে সহায়তাতেও সবার আগে বায়ার্নের টমাস মুলার। মোট ৩৪টা ম্যাচের মধ্যে ৩১টা ম্যাচ খেলেই চ্যাম্পিয়ন হল বায়ার্ন।

১৯৬৩ সালে বুন্দেসলিগা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বায়ার্ন ৩০ বার শিরোপা জিতল। ২০০০ সালের পর এটা বায়ার্নের ১৬তম শিরোপা। এরই মধ্যে থমাস মুলার ও ডেভিড আলাবা একটা রেকর্ডও গড়ে ফেলেছেন। দুজনই বায়ার্নের হয়ে ১০টি শিরোপা জিতলেন। যদিও ফ্লিকের মতো এটাই বায়ার্নের হয়ে আলাবার শেষ মৌসুম।

বর্তমানে ৩২ ম্যাচে ৭৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে আছে বায়ার্ন মিউনিখ। সমান ম্যাচে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়তে আছে লাইপজিগ। সমান ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয়তে আছে উলভসবার্গ। সমান ম্যাচে ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চতুর্থস্থানে আছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। এক ম্যাচ কম খেলে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৫ম স্থানে আছে ইন্ট্র্যাচট ফ্র্যাঙ্কফ্রুট।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?