বিশ্বরেকর্ডে বাবর আজম, পাকিস্তানের কষ্টার্জিত জয়

প্রকাশ : ০৩ এপ্রিল ২০২১, ১৬:১১

সাহস ডেস্ক

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে বারর আজমের রেকর্ড সেঞ্চুরির দিনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে কষ্টার্জিত জয় তুলে নিয়েছে পাকিস্তান। আর এই জয়ের দিনে একটি বিশ্বরেকর্ড গড়লেন বাবর আজম। পুরুষদের ওয়ানডে ক্রিকেটে দ্রুততম ১৩টি সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ডটি এখন এই পাকিস্তানী অধিনায়কের হাতে।

শুক্রবার (২ এপ্রিল) সেঞ্চুরিয়ন স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের ৩ উইকেটে হারিয়েছে পাকিস্তান। আর এই ম্যাচেই ক্যারিয়ারের ১৩তম সেঞ্চুরিটি করলেন বাবর। এই কীর্তি গড়তে পাকিস্তান অধিনায়কে খেলতে হয়েছে ৭৬টি ইনিংস। যেখানে তিনি প্রোটিয়া সাবেক অধিনায়ক হাশিম আমলার রেকর্ডটি ভেঙেছেন। আমলা ৮৩ ইনিংসে আগের রেকর্ডটি গড়েছিলেন। যদিও নারী ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক মেগ ল্যানিং সমান ৭৬ ইনিংসে ১৩টি ওয়ানডে সেঞ্চুরি করেছিলেন।

ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও দ.আফ্রিকান কুইন্টন ডি কক এর লেগেছে সমান ৮৬ ইনিংস এবং অস্ট্রেলিয়ান ডেভিড ওয়ার্নারের লেগেছে ৯১ ইনিংস।

তবে এদিন টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করা দক্ষিণ আফ্রিকা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উেইকেট হারিয়ে ২৭৩ রান সংগ্রহ করে। এই ইনিংসে ভ্যান ডার ডুসেনও সেঞ্চুরি করেন। তবে এটি ছিল তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারে অভিষেক সেঞ্চুরি। কিন্তু তাতেই একটি রেকর্ডের মালিক হলেন তিনি। সবচেয়ে বয়স্ক প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান হিসেবে ৩২ বছর ৫৪ দিনে এই অভিষেক সেঞ্চুরি করেন তিনি। ১৩৪ বলে ১০ চার ও ২ ছক্কায় ১২৩ রান করে অপরাজিত থাকেন ডুসেন।

এর আগে ১৯৯৫ সালে এই পাকিস্তানের বিপক্ষেই ৩১ বছর ৩৩৭ দিন বয়সে প্রোটিয়া মাইকেল রিনডেল সবচেয়ে বয়স্ক হিসেবে অভিষেক ওয়ানডে সেঞ্চুরি করেছিলেন। দেশটির সাবেক অলরাউন্ডার শন পোলকও ৩৩ বছর ৩২৫ দিন বয়সে অভিষেক ওয়ানডে সেঞ্চুরি করেছিলেন। তবে সেটি ছিল ২০০৭ সালে আফ্রিকা একাদশের হয়ে।

এই ম্যাচে একটি হাফসেঞ্চুরি করেন ডেভিড মিলার। ৫৬ বলে ৫ চারে ৫০ রান করেন মিলার। এছাড়া আর কেউ ভালো করতে পারেনি। অবশেষে পাকিস্তানকে ২৭৪ রানের টার্গেট দিয়েছে স্বাগতিরা।

২৭৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে সহজ ম্যাচটি কষ্টার্জিত জয় পেয়েছে পাকিস্তান। দলের হয়ে নিজের ক্যারিয়ারের একটি রেকর্ড সেঞ্চুরি করেছেন বাবর আজম। ১০৪ বলে ১৭ চারে ১০৩ রান করেছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
দক্ষিণ আফ্রিকা: ভ্যান ডার ডুসেন ১২৩*, ডেভিড মিলার ৫০, ফেলোকাওয়ে ২৯। (শাহীন আফ্রিদি ও হ্যারিস রউফ ২টি করে উইকেট নেন।)

পাকিস্তান: বাবর আজম ১০৩, ইমামুল হক ৭০, মোহাম্মদ রেজোয়ান ৪০, সাদান খান ৩৩। (এনরিজ নরতজে ৪টি ও ফেলাকাওয়ে ২টি উইকেট নেন।)

ম্যাচ সেরা হয়েছেন বাবর আজম।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?