নেইমারের জোড়া গোলে শীর্ষে পিএসজি

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৪:১২

সাহস ডেস্ক

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ‘এইচ’ গ্রুপের হাইভোল্টেজ ম্যাচে নেইমারের জোড়া গোলে অবশেষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে হারিয়ে নকআউট পর্বে ওঠার সম্ভাবনা জোরালো করেছে প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি)। আর এই জয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে পেছনে ফেলে টেবিলের শীর্ষে শীর্ষে উঠে এসেছে ফরাসিরা।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ওলে গানার সুলসারের শিষ্যদের ৩-১ গোলে হারিয়েছে টমাস টুখেলের শিষ্যরা।

এর আগে ২০১৮-১৯ মৌসুমে এই ইউনাইটেডের কাছেই নিজেদের মাঠে শেষ মুহূর্তের পেনাল্টিতে ৩-১ গোলে হেরে শেষ ষোলোতে বাদ পড়েছিল প্যারিসের ক্লাবটি। সেই ম্যাচে চোটের কারণে ছিলেন না নেইমার। ভিআইপি বক্সে অসহায় চোখে দেখেছিলেন শেষ মুহূর্তে হাস্যকর পেনাল্টিতে গোল খেয়ে দলের বাদ পড়া। ইউনাইটেড পিএসজিকে হতাশা উপহার দিয়েছে এই মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ম্যাচেও। যেদিন নিজেদের মাঠেই পিএসজি হারল, সেদিন নেইমার ছিলেন মাঠে। সেদিন হারের ব্যবধানটা ছিল ২-১। তবে গতকালের ম্যাচে সেই শোধটাই নিয়েছে প্যারিসরা।

এদিন ম্যাচের শুরুতেই নেইমারের গোলে এগিয়ে যায় পিএসজি। ম্যাচের ষষ্ঠ মিনিটে কিলিয়ান এমবাপ্পের শটে বল প্রতিপক্ষের একজনের পায়ে লেগে চলে যায় ছয় গজ বক্সের ডান দিকে, সেখানে দুরূহ কোণ থেকে জোরালো শটে গোলটি করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমার।

পরে এই লিড ধরে রাখতে পারেনি পিএসজি। ম্যাচের ৩২ মিনিটে সমতায় ফেরে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। অঁতনি মার্সিয়ালের শট পিএসজি গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে ঠেকানোর পর এক সতীর্থের পা ঘুরে ডি-বক্সের মুখ থেকে জোরালো শট নেন র‌্যাশফোর্ড। বল ডিফেন্ডার দানিলোর পায়ে লেগে কিছুটা দিক পাল্টে পোস্ট ঘেঁষে জালে জড়ায়। পরে প্রথমার্ধে আগে আর কোন গোল না হলে এই ১-১ গোলের সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দু’দল।

বিরতি থেকে ফিরে এসে ম্যাচের ৬৯ মিনিটে ফের এগিয়ে যায় পিএসজি। ডান দিক থেকে আবদু দিয়ালোর পাস ছোট ডি-বক্সের মুখে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে টোকা দিয়ে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মার্কিনিয়োস।

পরে ম্যাচের ৭০ মিনিটেই রেফারির বিতর্কিত সিদ্ধান্তে ১০ জনের দলে নেমে আসে ইউনাইটেড। আন্দের এররেরাকে ফাউল করায় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন ফ্রেদ, যদিও স্লাইড ট্যাকলে বলে পা লাগিয়েছিলেন তিনি। এর আগে ২১ মিনিটে লেয়ান্দ্রো পারেদেসের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের মাঝে তাকে মাথা দিয়ে গুতো মেরে বসেন ইউনাইটেডের মিডফিল্ডার ফ্রেদ। ঘটনাটি কেন্দ্র দুই দলের খেলোয়াড়রা কিছুক্ষণের জন্য বিবাদে জড়িয়ে পড়েন। পরে ভিএআরের সাহায্যে ফ্রেদকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি।

এরপর ম্যাচের নির্ধারিত সময়ের শেষ পাঁচ মিনিটে চাপ বাড়ায় পিএসজি। যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে সব অনিশ্চয়তার ইতি টানেন নেইমার। ৯০+১ মিনিটে রাফিনিয়ার কাটব্যাক ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে অনায়াসে প্লেসিং শটে স্কোরলাইন ৩-১ করে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন ব্রাজিলিয়ান সেরা তারকা নেইমার।

এই জয়ে ৫ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে পিএসজি। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়তে নেমে গেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয়তে আছে লাইপজিগ। সমান ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তলানিতে আছে ইস্তানবুল বাসাকসেহির।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?