x

এইমাত্র

  •  করোনা: ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা
  •  করোনায় অর্থনীতির প্রভাব নিয়ে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী
  •  তাবলীগ জামাতে আসা মুসল্লি করোনা আক্রান্ত, পৌর এলাকা লকডাউন
  •  আইসোলেশন শেষে স্ত্রী-কন্যার কাছে ফিরেছেন সাকিব
  •  যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রেকর্ড, একদিনে প্রাণ গেল ১২২৪ জনের

অবশেষে বাংলাদেশের টেস্ট জয়

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬:৪৮

সাহস ডেস্ক

অবশেষে টেস্ট জয়। স্পিনার নাঈম হাসান ও তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে টানা ৬ টেস্ট এবং দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর আজ টেস্ট জয়ের স্বাদ পেল বাংলাদেশ।

আজ ২৫ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে একমাত্র টেস্টের চতুর্থ দিনে জিম্বাবুয়েকে এক ইনিংস ও ১০৬ রানের ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজ জিতে নিল বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে যোগ হলো তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম আর মুমিনুল হকের দুর্দান্ত ফিল্ডিং।

এদিন দিনের শুরু থেকেই জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানদের চেপে ধরেন বাংলাদেশি স্পিনাররা। দিনের শুরুতে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামা জিম্বাবুয়ের তৃতীয় উইকেটটি তুলে নেন তাইজুল ইসলাম। আগের দিনের অপরাজিত থাকা কেভিন কাসুজাকে মোহাম্মদ মিঠুনের ক্যাচে পরিণত করেন এই বাঁহাতি স্পিনার।

লাঞ্চে যাওয়ার আগে সফরকারী দলনেতা ক্রেইগ আরভিনকে রান আউটের ফাঁদে ফেলে বিদায় করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। ৪৯ বলে ৪৩ করেন আরভিন। দলীয় ৪৪ রানে নাঈম হাসানের আঘাতে ব্র্যান্ডন টেইলরকে হারায় জিম্বাবুয়ে। ৪৭ বলে ১৭ রান করা টেইলরকে তাইজুল ইসলামের ক্যাচে ফেরান নাঈম। 

লাঞ্চ থেকে ফিরে সিকান্দার রাজাকে মাঠ ছাড়া করান তাইজুল ইসলাম। ৭১ বলে ৩৭ রানে করা রাজা তুলে মারতে গেলে শটে থাকা মুশফিকুর রহিম দুর্দান্ত এক ক্যাচ লুফে তাকে বিদায় করেন। কার্যত সেখানেই শেষ হয় জিম্বাবুয়ের সব প্রতিরোধ। এরপর ১৮ রান করে তাইজুলের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন রাগিস চাকাভা।

চাকাভার বিদায়ের পর ৫ রান যোগ হতেই আইন্সলে এনলভোকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন নাঈম। এরপর নাঈমের বলে গলার কাঁটা হয়ে থাকা মারুমার (৪১) তুলে মারা শট দারুণ দক্ষতায় লুফে নেন তামিম। আর এরই মাধ্যমে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো এক ইনিংসে পাঁচ উইকেট তুলে নেওয়ার কীর্তি গড়লেন তরুণ নাঈম। এরপর চার্লটনকে বিদায় করে জিম্বাবুয়ের ইনিংস গুটিয়ে দেন তাইজুল।

বল হাতে দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট মিলিয়ে বাংলাদেশের নাঈম দুই ইনিংস মিলিয়ে ১৫২ রান খরচে তুলে নিয়েছেন ৯ উইকেট। এই তরুণ স্পিনারের এটা ক্যারিয়ার সেরা বোলিং।

জিম্বাবুয়ে এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে অলআউট হয়। তবে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে মুশফিকুর রহিমের ডাবল সেঞ্চুরি ও মুমিনুল হকের সেঞ্চুরিতে ভর করে রান পাহাড় গড়ে। ৬ উইকেট হারিয়ে ৫৬০ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে। পরে জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে তৃতীয় দিনের শেষে ৯ রানে দুই উইকেট হারিয়ে মাঠ ছাড়ে।

বাংলাদেশ সর্বশেষ টেস্ট জিতেছে ২০১৮ সালের ২ ডিসেম্বর। সময়ের হিসেবে দেড় বছরেরও বেশি সময় টেস্টে জয়খরায় ছিল বাংলাদেশ। গত বছর তো কেটেছে জয়খরায়। ২০১৯ সালে ৫ টেস্ট খেলে একটি ম্যাচও জেতেনি বাংলাদেশ। এ বছরও শুরু হয়েছে হার দিয়ে। গত ফেব্রুয়ারিতে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারে মুমিনুল হকের দল। সব মিলিয়ে টানা ৬ টেস্টে দেখতে হয়েছে হার। এমন অবস্থায় দলের আত্মবিশ্বাস তলানিতে নেমে যাওয়ার কথা। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়াতে এ জয়টা নিশ্চিতভাবেই টনিকের কাজ করবে।

এই জয় নিয়ে মুশফিক বলেছেন, ‘দল হিসেবে এ জয়টা দরকার ছিল। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে বোলাররা দারুণ করেছে। কাউকে না কাউকে অনেক সময় ব্যাট করতে হতো। আমি ভাগ্যবান যে ডাবল সেঞ্চুরি পেয়েছি। তামিম ও শান্ত ভালো শুরু এনে দিয়েছে। লিটনও রান করেছে।’

অধিনায়ক মুমিনুল বলেছেন, ‘এ জয় থেকে সবাই আত্মবিশ্বাস পাবে। সবাই ভালো করেছে। দলের খেলায় আমি সন্তুষ্ট। আশা করি আমরা ওয়ানডে সিরিজও জিতব।’

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
বাংলাদেশ: ৫৬০/৬ (ডিক্লেঃ) (মুশফিক ২০৩, মুমিনুল ১৩২, শান্ত ৭১, লিটন ৫৩; এনলভু ১৭০/২)
জিম্বাবুয়ে: ২৬৫ ও ১৮৯ (আরভিন ৪৩, মারুমা ৪১; নাঈম ৮৩/৫, তাইজুল ৭৮/৪)
ফলাফল: বাংলাদেশ ইনিংস ও ১০৬ রানে জয়ী
ম্যাচ সেরা: মুশফিকুর রহিম

আগামী ১ মার্চ থেকে সিলেটে শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত