x

এইমাত্র

  •  ওমানে বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা
  •  রাজস্ব আদায়ের লক্ষমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হতে পারে রাজস্ব বোর্ড
  •  ঢাকায় এসে পৌঁছেছে মেট্রোরেল কোচের প্রথম চালান
  •  মহারাষ্ট্রের হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহে ত্রুটি, ২২ রোগীর মৃত্যু
  •  ফিতরা জনপ্রতি সর্বোচ্চ ২,১৩০ ও সর্বনিম্ন ৭০ টাকা নির্ধারণ

লুকাসের হ্যাট্রিকে দুর্দান্ত আয়াক্সকে হারিয়ে ফাইনালে টটেনহ্যাম

প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৯, ১৫:০৭

সাহস ডেস্ক

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের চলতি আসরে ডি লিট, ফন ডি বিক, হাকিম জিয়েচ, ডুসান ট্যাডিচদের মতো তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়ে দুর্দান্ত খেলছিলো নেদারল্যান্ডসের ক্লাব আয়াক্স! রিয়াল মাদ্রিদ. জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার সিটির মতো বড় বড় দলগুলিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছিল ক্লাবটি। সেমির প্রথম লেগে আনফিল্ডে টটেনহ্যামকে ১-০ গোলেও হারিয়েছিল তারা। তবে দ্বিতীয় লেগে নিজেদের মাঠে 'এওয়ে' গোলে টটেনহ্যামের বিপক্ষে হেরে চলতি আসর থেকে বিদায় নিয়েছে আয়াক্স। এদিন লুকাস মউরার হ্যাট্রিকে আয়াক্সকে হারিয়ে নিজেদের ইতিহাসের প্রথমবারের মতো ফাইনালে পৌঁছে গিয়েছে টটেনহ্যাম হটস্পার।

৮ মে (বুধবার) দিবাগত রাতে আয়াক্সের মাঠে ৩-২ গোলে জিতেছে টটেনহাম। দুই লেগ মিলিয়ে ৩-৩ গোলের ড্র হলে 'এওয়ে' গোলের সুবিধায় ফাইনালে নিজেদের টিকিট নিশ্চিত করে মাউরিসিও পচেত্তিনোর দল।

যার ফলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে মাত্র দ্বিতীয়বারের মতো ‘অল ইংলিশ’ ফাইনাল দেখতে যাচ্ছে ফুটবল বিশ্ব। এর আগে ২০০৭-০৮ আসরের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও চেলসি। সেবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

প্রথম লেগের মতো ঘরের মাঠে দ্বিতীয় লেগেও আধিপত্য বিস্তার করেই শুরু করেছিল আয়াক্স। ম্যাচের পঞ্চম মিনিটেই দলকে প্রথম গোল এনে দেন অধিনায়ক ম্যাথিজ ডি লিট। কর্ণার থেকে উড়ে আসা বলে সরাসরি হেডে গোলটি করেন তিনি।

দুই লেগ মিলে ২-০ গোলে পিছিয়ে পড়া টটেনহাম গোল শোধ করতে মরিয়া হয়ে পড়ে। কিন্তু বেশ কয়েকটি সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয় তারা। উল্টো ম্যাচের ৩৫তম মিনিটে ফন ডি বিকের পাস থেকে ম্যাচের দ্বিতীয় গোলটি করেন হাকিম জিয়েচ।

ম্যাচের প্রথমার্ধেই দুই লেগ মিলে ৩-০ গোলে এগিয়ে যাওয়ায় প্রায় দুই যুগ পর চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জেতার সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল হয় আয়াক্সের। কিন্তু ম্যাচের নাটকীয়তার তখনো অনেক বাকি। যার পুরোটাই হয় দ্বিতীয়ার্ধে।

পাল্টা আক্রমণ থেকে নিজেদের প্রথম গোলটি পায় টটেনহাম। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৫৫তম মিনিটে ডেলে আলির দুর্দান্ত এক পাসে দারুণ ক্ষিপ্রতায় ব্যবধান কমান ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার লুকাস মউরা।

মিনিট চারেক পর দলকে সমতায় আনার কাজটিও করেন তিনি। তবে এতে পান ভাগ্যের সহায়তা। ফার্নান্দো লরেন্তের জোরালো শট কোনোমতে ঠেকিয়ে দেন আয়াক্স গোলরক্ষক। কিন্তু ফিরতি বল পেয়ে যান মউরা। ফাঁকায় গিয়ে বা পায়ের শটে বল জালে জড়ান তিনি।

ম্যাচে চলে আসে ২-২ গোলের সমতা। তবে প্রথম লেগের গোলে তখনো দুই লেগ মিলে এগিয়েই ছিলো আয়াক্স। মনে হচ্ছিলো সেই গোলের কল্যাণেই হয়তো ফাইনালে পৌঁছে যাবে তারা। আস্তে আস্তে করে শেষের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলো ম্যাচ।

নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষ করে ইনজুরি সময়েরও ৫ মিনিট তখন শেষ। ঠিক তখনই আয়াক্সের মাঠের সমর্থকদের বুকের মধ্য দিয়ে যেন বুলেট চালান মউরা। এবারও ডেলে আলির পাস থেকে ঠাণ্ডা মাথায় বল জালে জড়ান তিনি, পূরণ করেন হ্যাটট্রিক, ফাইনালে পৌঁছে দেন নিজের দলকে।

আগামী ২ জুন প্রথম প্রহরে ফাইনাল ম্যাচে লিভারপুলের মুখোমুখি হবে টটেনহ্যাম হটস্পার।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?