x

এইমাত্র

  •  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে জানালার গ্রিলে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় একজনের মৃতদেহ উদ্ধার

ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে ক্লাবগুলোর অস্তিত্ব সংকট

প্রকাশ : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:৪৫

সাহস ডেস্ক

মাঠে খেলা অনিয়মিত৷ সাফল্য আরো অনিয়মিত৷ ক্রিকেটের জাতীয় দল বাদে অন্য খেলাগুলোর দর্শক নেই৷ যে ক্লাব সংস্কৃতির উপর বেঁচে থাকে দেশের ক্রীড়াঙ্গন, তাতে পচন বেশ আগেই৷ দুঃসহ দীর্ঘকাল ধরে তাই ধুঁকছিল বাংলাদেশের ক্রীড়া-ক্লাবগুলো৷

তবু তো টিকে ছিল৷ কিন্তু এবারের যে ক্যাসিনো কেলেঙ্কারি, তাতে ক্লাবগুলোর অস্তিত্বই সংকটের মুখে৷ আগামী মৌসুমে খেলা মাঠে গড়াবে কিনা, তা নিয়ে এখন ঘোর সংশয়৷

ঢাকার ফকিরাপুল ইয়ংমেন্স ক্লাব, ওয়ান্ডারার্স, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র এবং কলাবাগান ক্রীড়া চক্র খেলাধুলার কারণে সংবাদ শিরোনামে আসে না বহুকাল৷ এবার পুরো দেশ কাঁপিয়ে গণমাধ্যমে ক্লাবগুলোর সরব উপস্থিতি৷ আর সেটি কী ন্যাক্কারজনক কারণে! আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেখানে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করেছে ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম৷ এরপর অভিযান ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, দিলকুশা স্পোর্টি ক্লাব এমনকি মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে পর্যন্ত৷ এখানেই শেষ নয়৷ চট্টগ্রামের আবাহনী লিমিটেড, মোহামেডান ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্লাবেও চলে একই রকম অভিযান৷

তাতে প্রমাণ মেলে, ক্লাবগুলো মাঠের খেলা ছাড়িয়ে হয়ে উঠেছিল জুয়ার আখড়া৷ আরো ভয়ঙ্কর ব্যাপার হলো, ক্রীড়া ক্লাবগুলোর এই ক্যাসিনো ক্লাবে রূপান্তর সংগঠকদের প্রশ্রয়ে; তাঁদের সরাসরি তত্ত্বাবধানে৷

খেলোয়াড়-কোচ-সংগঠক হিসেবে ক্লাবের সঙ্গে নিজের জীবনের প্রায় পুরোটাই কাটিয়েছেন ফুটবলের গোলাম সারোয়ার টিপু৷ বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে তিনি ভীষণ উদ্বিগ্ন, ‘‘আমার বয়স এখন ৭৫ বছর৷ এর মধ্যে ৫০-৬০ বছর তো খেলার সঙ্গে, ক্লাবের সঙ্গেই কাটিয়ে দিলাম৷ এই দীর্ঘ সময়ে সামগ্রিক অর্থে বাংলাদেশের ক্লাবগুলো এমন সংকটে কখনো পড়েছে বলে আমার মনে পড়ে না৷’’ তাঁর পরিচয়ের সঙ্গে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের নামও এ কেলেঙ্কারিতে যোগ হওয়ায় ক্ষুব্ধ টিপু, ‘‘আমি আবাহনীতে খেলেছি৷ ওদের প্রথম লিগ চ্যাম্পিয়ন দলের অধিনায়ক ছিলাম৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত সবার কাছে আমি ‘মোহামেডানের টিপু’৷ এখন তো সেই পরিচয় সংকটেই পড়ে গেছি৷ মোহামেডানের টিপু পরিচয়টা দিতে এখন আমি লজ্জিত বোধ করছি; অপমানিত বোধ করছি৷’’

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এমন কাজে উল্টো ক্রোধ জানিয়েছেন চট্টগ্রামের এক ক্লাব কর্মকর্তা৷ ক্লাবগুলোর নিজস্ব আয়ের কোনো জায়গা নেই, অনুদানের ভিত্তিতে তা পরিচালিত হয় বলে জানিয়েছেন৷ ক্যাসিনো বা জুয়াবোর্ডের অর্থ থেকে খেলোয়াড়দের টাকা দেয়া হয় বলেও বুঝিয়ে দেন প্রচ্ছন্নে৷ কিন্তু সেটি তো আর ক্রীড়াক্লাবে ক্যাসিনো চালানোর বৈধতার ছাড়পত্র হতে পারে না৷ আর এখানকার অর্থের কত শতাংশ খেলোয়াড়রা পান; বিপরীতে কিভাবে ফুলেফেঁপে ওঠেন ভুঁইফোঁড় ক্লাব কর্মকর্তারা৷ সেটিও কারো অজানা নয়৷

ক্লাবগুলোর নিজস্ব আয় নেই; সত্যি৷ অনুদানের ভিত্তিতে ক্লাবগুলো চলে; সত্যি৷ কিন্তু বাংলাদেশে এ বাস্তবতা তো চিরকালীন৷ তবু কি অতীতে নিবেদিতপ্রাণ সংগঠকরা নিজেদের মতো অর্থ সংস্থান করে ভালোবাসার ক্লাব চালাননি? তেমনই এক উদাহরণ দেন গোলাম সারোয়ার টিপু, ‘‘আমাদের সময়ের সংগঠকরা বউয়ের গয়না বিক্রি করে ক্লাব চালাতেন৷ আমার মনে আছে, মোহামেডান ক্লাব একবার অর্থ সংকটে পড়ল৷ আমান ভাই নামের এক সংগঠক ফুটবলের দলবদলের সময় নিজের গাড়ি বিক্রি করে দিলেন খেলোয়াড় কেনার জন্য৷ এখন তো এটি গাঁজাখুরি গল্পের মতো শোনাবে৷ কারণ, এখনকার সংগঠকরা ক্লাবকে ব্যবহার করে বিপুল বিত্তশালী হয়ে উঠছেন৷ নিজেদের আর্থিক লাভের জন্য, লোভের জন্য এখানে ক্যাসিনো পর্যন্ত চালাতেন, ভাবা যায়!’’

৪০ বছরের বেশি সময় ধরে ক্লাব সংগঠনের সঙ্গে জড়িয়ে আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববি৷ ক্যাসিনো-কাণ্ডে তিনিও ভীষণ বিব্রত৷ অবৈধ অর্থের মালিকদের ক্লাবে প্রবেশকে এর কারণ হিসেবে দেখেন তিনি, ‘‘আগে ক্লাবের কার্ডরুমে কার্ড খেলা হতো৷ সেটি নির্দোষ বিনোদন৷ ক্লাব সদস্যরাই অংশ নিতেন কেবল৷ সেখান থেকে অল্প যে কিছু টাকা উঠত, তা দিয়ে ক্লাবের বল কেনা কিংবা চা-নাস্তা কেনার মতো টুকটাক কাজে ব্যয় হতো৷ পরবর্তীতে ক্লাবের খরচ অনেক বেড়ে যাওয়ায় এখানে প্রবেশ করেন কালো টাকার মালিকরা৷ ক্লাবের সুনাম ব্যবহার করে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি করেন তারা৷ সেটি করতে করতে এভাবে যে ক্যাসিনোর সংস্কৃতিতে ঢুকে যাবে ক্লাবগুলো, তা কোনোভাবে মেনে নেয়া যায় না৷’’

সাম্প্রতিক এ কেলেঙ্কারিতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গন৷ কিভাবে? হাহাকার ছড়ানো কণ্ঠে গোলাম সারোয়ার টিপু বলেন, ‘‘দেখুন, বাংলাদেশে ক্রিকেট বাদে অন্য সব খেলার খেলোয়াড় এখন কমে গেছে৷ তবু তো কিছু ছেলে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ঢাকায় ফুটবল খেলতে আসে, ক্রিকেট খেলতে আসে, হকি খেলতে আসে৷ খুলনা থেকে, কুমিল্লা থেকে, নীলফামারি থেকে যে ছেলেটি খেলার স্বপ্ন নিয়ে ক্লাবতাঁবুতে এসে ওঠে, সে কী পরিবেশ পাচ্ছে? পাচ্ছে জুয়ার পরিবেশ; ক্যাসিনোর পরিবেশ৷ ওখানেই তো সব শেষ৷ মা-বাবারা কেন তাঁদের সন্তানকে এমন পরিবেশে পাঠাবেন?’’

নির্দিষ্ট কোনো আয়ের উৎস না থাকা বাংলাদেশের ক্রীড়া-ক্লাবগুলো চলে অনুদানের ভিত্তিতে৷ ক্যাসিনো-কাণ্ড প্রকাশ্য হওয়ায় এবার সে জায়গা সংকুচিত হবে; সামগ্রিক অর্থেই তাই দেশের ক্রীড়াঙ্গনের ঘোর দুর্দিনের আশঙ্কা টিপুর, ‘‘এতদিন আমাদের ক্লাবগুলোর ক্রীড়ায় সাফল্য ছিল না৷ এবার যোগ হলো বদনাম৷ এখনো যে অল্পসংখ্যক নিবেদিতপ্রাণ সংগঠক রয়েছেন, তারা কি ক্লাবের সঙ্গে জড়িয়ে এ বদনামের ভাগীদার হতে চাইবেন? চাইবেন না৷ বসুন্ধরার মতো বড় প্রতিষ্ঠান বেশ কিছু ক্লাব চালায়৷ অমন বড় অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান নতুন করে ক্লাবের সঙ্গে জড়িয়ে এই ক্যাসিনো-লজ্জার ভাগ হতে চাইবে? চাইবে না৷ আগামী মৌসুমে ক্লাবগুলো তাই কিভাবে ফুটবল-হকি-ক্রিকেটসহ সব খেলার দল গঠন করবে, সেটি ভেবে পাচ্ছি না৷ খেলা মাঠে গড়ায় কিনা, তা নিয়েও আমার সন্দেহ৷’’

তবে এই ঘোর অন্ধকারেও সম্ভাবনার সূর্যরশ্মি দেখছেন আবাহনী ক্লাবের সংগঠক আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববি, ‘‘সময়টা অবশ্যই খারাপ৷ তবে এই খারাপ থেকে ভালো কিছুও হতে পারে৷ ক্লাবগুলোর আয়ের নির্দিষ্ট জায়গা তৈরি করতে হবে৷ সরকার, ক্রীড়া মন্ত্রণালয় মিলে সেটি করা সম্ভব৷ তাহলে কালো টাকার মালিকরা এখানে আসতে পারবেন না৷ ক্লাবগুলো যদি বিত্তশালী কালো টাকার মালিকদের হাতে জিম্মি না হয়ে সত্যিকার সংগঠকদের দ্বারা পরিচালিত হয়, তাহলে এ দুঃসময় কেটে যাবে৷’’

আর তা যদি না হয়, তাহলে বাংলাদেশ ক্রীড়াঙ্গনের জন্য অপেক্ষা করছে প্রলম্বিত দুঃস্বপ্ন৷

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত