x

এইমাত্র

  •  হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক গ্রেপ্তার

আজ বিদ্রোহী চিত্রকর পটুয়া কামরুল হাসানের জন্মদিন

প্রকাশ : ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:০৪

সাহস ডেস্ক

১৯২১ সালের ২ ডিসেম্বর কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন কামরুল হাসান। পিতা মোহাম্মদ হাসিম ছিলেন গোরস্থানের সুপারিনটেন্ডেন্ট। কলকাতা সাধারণত ছিল হিন্দুবেষ্টিত এলাকা, এর মধ্যে তিনি জন্ম নিয়েছেন রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারে। একদিকে নিজেকে মেলে ধরবার হাতছানি, অন্যদিকে সংস্কার ধরে রাখবার চেষ্টায় লিপ্ত মুসলমান পরিবার। দুয়ে মিলে কামরুল হাসানকে বেগ পেতে হয়েছিল ছোটবেলা থেকেই।
শিল্পচর্চায় কামরুল হাসানের হাতেখড়ি হয় ব্রতচারী আন্দোলনের মাধ্যমে। সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ১৯৩২ সালে উৎপত্তি লাভ করা এ আন্দোলনে কামরুল হাসান যোগ দেন খুব অল্প বয়সে। মূলত দেশপ্রেম সৃষ্টিই ছিল এ আন্দোলনের লক্ষ্য। তাই ব্রিটিশ শাসনের অধীনে থেকেও এ আন্দোলনে ব্রিটিশ সরকার কোনো বাধা প্রধান করেনি বরং সমর্থন জানিয়েছে ব্রতচারীদের। এই ব্রতচারী আন্দোলনের সাথে থেকে লোকনৃত্য ও লোকসঙ্গীত চর্চার পাশাপাশি দেশের প্রতি একধরনের টান অনুভব করতে শুরু করেন কামরুল হাসান। ধীরে ধীরে প্রকৃতিকে কাছ থেকে দেখাও শুরু হয় সেখান থেকেই। একসময় ব্রতচারী আন্দোলন থেমে গেলেও থামেননি কামরুল হাসান।

ছোটবেলা থেকেই বিদ্রোহী স্বভাব ও ছবি আঁকার প্রতিকূল পরিবেশ নিয়ে বড় হতে হয়েছে কামরুল হাসানকে। তাই পরিবারের সাথে বিদ্রোহ করেই ১৯৮৩ সালে ভর্তি হন কলকাতা আর্ট স্কুলে। ছবি আঁকার পাশাপাশি তিনি হয়ে উঠছিলেন সংগঠকও। সেসময়েই হাতে লেখা দেয়ালিকা বের করতেন তিনি। সেখানে গল্প, কবিতা, ছবি সবই থাকতো। হাতে লিখে লিখে বের করেছেন ঈদ সংখ্যাও। কাজ করেছেন বয়েজ স্কাউটে, ছিলেন শরীরচর্চা বিশারদও। ১৯৪৫ সালে শরীরচর্চা প্রতিযোগিতায় বেঙ্গল চ্যাম্পিয়ন হয়ে 'মিস্টার বেঙ্গল' উপাধিও লাভ করেন।

দেশভাগের সময় পিতাকে হারিয়ে চলে আসেন বাংলাদেশে। ভেবেছিলেন, এবার মুক্তি মিলেছে। কিন্তু তখন দেখা গেল একজন এপিডিআই সরকারি নথিতে লিখেছেন, ইসলামী একটি দেশে ছবি আঁকার স্কুল থাকতে পারে না। এই বক্তব্য সে সময়ে ছবি আঁকার প্রতিকূল পরিবেশের চিত্র স্পষ্ট করে তুলে আমাদের সামনে। ছবি একে উপার্জন তো কল্পনার অতীত। তবে হাল ছাড়েননি কামরুল হাসান। জয়নুল আবেদীনের সাথে মিলে ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ঢাকা আর্ট স্কুল, যা বর্তমানে চারুকলা অনুষদ হিসেবে পরিচিত। সেখানেই শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন তিনি।

ব্যক্তিগতভাবে তিনি ছিলেন প্রচণ্ডভাবে রাজনৈতিক সচেতন এক ব্যক্তিত্ব। যেকোনো আন্দোলন সংগ্রামে তার সরব উপস্থিতির কথা শুনতে পাওয়া যায়। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি তার একটি চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন হবার কথা ছিল। কিন্তু দেশের পরিস্থিতি বিবেচনা করে তিনি তা স্থগিত করেছিলেন। '৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে তিনি ছিলেন সক্রিয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন তিনি প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও বেতার দপ্তরের শিল্প বিভাগের পরিচালকের দায়িত্বে কর্মরত ছিলেন।
২৩ মার্চ, ১৯৭১। শহীদ মিনারে ইয়াহিয়া খানের বিকৃত ১০টি ছবি ঝুলছে কামরুল হাসানের আঁকা। ছবিগুলোর নিচে লেখা ছিল "এই জানোয়ারটা আবার আক্রমণ করতে পারে"। তারপর এ দেশের ইতিহাসের বর্বরতম ভয়াল ২৫শে মার্চের কালরাত কেটে গেছে। পরেরদিন ছবিটা আবারও ফিরে এসেছে, তবে এবার নিচের লেখাটা বদলে গেছে। আগে লেখা ছিল "এই জানোয়ারটা আবার আক্রমণ করতে পারে", পরে সেটা হয়েছে "এই জানোয়ারদের হত্যা করতে হবে"। 

তারপর দেশ স্বাধীন হয়ে গেলো, কিন্তু মানুষ মুক্তি পেলো না। বন্ধ হলো না কামরুল হাসানের সংগ্রামও। ১৯৮৮ সালের ২রা ফেব্রুয়ারি জাতীয় কবিতা উৎসবে সভাপতিত্ব করছিলেন তিনি। সে সভাতে আবারও রাখেন তিনি তাঁর বিদ্রোহের ছাপ। ‘দেশ আজ বিশ্ব বেহায়ার খপ্পরে’ শীর্ষক ব্যঙ্গচিত্রটি আঁকেন সেখানে। তৎকালীন রাষ্ট্রপতি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদকে ব্যঙ্গ করেই জনসম্মুখে এই স্কেচটি সম্পন্ন করেন। বিদ্রোহ ছিল তার মননে, মগজে। তাই বিদ্রোহী অবস্থাতেই সেদিন সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন। তবে মরে গিয়েও বিদ্রোহ ছাড়েননি তিনি। তার সৃষ্টি আজও মানুষকে বিদ্রোহী করে তোলে। আজও মানুষ চেষ্টা করে সেi কিশোরীটিকে মুক্ত করতে যে উঁকি দিয়ে দেখছে, দেশ শত্রুমুক্ত হয়েছে কিনা।

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার বর্তমান যে ডিজাইন, তা কামরুল হাসানের হাতেই করা হয়েছিল। এছাড়া বাংলাদেশের জাতীয় প্রতীক, বিমান বাংলাদেশের লোগোসহ প্রায় চার হাজারের মতো কাজ নিজ হাতে করেছেন তিনি। বাংলাদেশের ইতিহাস যতদিন থাকবে, ততদিনই এদেশের মানুষের স্মরণ করতে হবে কামরুল হাসানের মতো সময়ের আগে হাঁটা অসাধারণ ব্যক্তিত্বকে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত