লক্ষ্মীপুর হানাদার মুক্ত দিবস আজ

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৫৭

লক্ষ্মীপুর হানাদার মুক্ত দিবস আজ ৪ ডিসেম্বর। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পুরো সময় জুড়ে লক্ষ্মীপুর জেলা ছিল স্বাধীনতা বিরোধী পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদর আল-শামসদের সহযোগিতায় নৃশংস হত্যা, লুট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণের ঘটনায় ক্ষত-বিক্ষত। ১৯৭১ সালের এ দিনে বীর মুক্তিযোদ্ধারা সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে, এ জেলায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করে। তাদের হত্যা, লুট, আর পাশবিক নির্যাতনের হাত থেকে মুক্তিপায় জেলাবাসী।

লক্ষ্মীপুরকে হানাদার মুক্ত করতে মুক্তিযোদ্ধারা দীর্ঘ ৯ মাস জেলার বিভিন্ন স্থানে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে ২২ টি সম্মুখ যুদ্ধসহ ২৯টি দুঃসাহসিক অভিযান চালায়। এতে শহীদ হন ৩৫ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ অনেক মুক্তিকামী বাঙ্গালী। পাক-হানাদার বাহিনীকে প্রতিরোধ করতে গিয়ে সর্বপ্রথম মুক্তিযোদ্ধারা লক্ষ্মীপুর শহরের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া রহমতখালী খালের ওপর নির্মিত মাদাম ব্রিজটি উড়িয়ে দেন। আজও এর স্মৃতি হিসেবে ব্রিজের লোহার পিলার দাঁড়িয়ে আছে।

৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধকালীন এ জেলায় উল্লেখযোগ্য রণক্ষেত্র গুলো হল- কাজির দিঘীর পাড়, মিরগঞ্জ, চৌধুরী বাজার, দালাল বাজার, রায়পুর আলীয়া মাদ্রাসা, ডাকাতিয়া নদীর ঘাট, চর আলেকজান্ডার সিড গোডাউন, প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, রামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, রামগঞ্জের গোডাউন এলাকা। যুদ্ধে লক্ষ্মীপুর জেলায় ৩৫ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ শতাধিক লোক শহীদ হয়েছেন। সদর উপজেলায় ২৩ জন, রামগতিতে ২জন, কমলনগর ১জন, রায়পুরে ৭জন ও রামগঞ্জে ২জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।

এ সব যুদ্ধে আবু ছায়েদ, আবদুল হালিম বাসু, রবীন্দ্র কুমার সাহা, মাজহারুল মনির সবুজ, মুনছুর আহাম্মদ, চাঁদ মিয়া, মো. মোস্তফা মিয়া, জয়নাল আবেদিনসহ ৩৫ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ বহু নিরীহ মুক্তিকামী মানুষ শহীদ হন।

মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস ধরে পাকহানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা লক্ষ্মীপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে চালায় নারকীয় তান্ডবলীলা। হানাদার বাহিনী শহরের বাগবাড়ীতে ক্যাম্প স্থাপন করে বিভিন্ন এলাকা থেকে মুক্তিকামী হাজার হাজার নর-নারীকে ধরে এনে নির্মমভাবে নির্যাতন করতো এবং যুবতীদের পাশবিক নির্যাতন শেষে হত্যা করে বাগবাড়ীস্থ গণকবর, মাদাম ব্রিজ এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে গর্তে পুতে ফেলতো। এছাড়াও বহু মুক্তিকামী বাঙালিকে হত্যা করে রহমতখালী নদীর খরস্রোতে ফেলে দিয়েছিল হানাদাররা।

১৯৭১ সালের ২১ মে ভোর রাতে লক্ষ্মীপুর শহরের উত্তর ও দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের হিন্দু পাড়ায় পাকহানাদার বাহিনী ভয়াবহ তান্ডবলীলা চালায়। বাড়ি ঘরে আগুন লাগিয়ে, বহু মানুষকে গুলি ও বেওনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করাসহ নির্যাতন চালায় তারা। এ সময় ১১টি বাড়ির ২৯টি বসত ঘর আগুনে পুড়ে ছাই করে দেওয়া হয়। এতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে ও হানাদারদের গুলিতে প্রাণ হারায় প্রায় ৪০ জন নিরস্ত্র বাঙ্গালী। এ সব নারকীয় হত্যাযজ্ঞের আজও নীরব সাক্ষী হয়ে আছে শহরের বাগবাড়ীস্থ গণকবর, মাদাম ব্রিজ, পিয়ারাপুর ব্রিজ ও মজুপুরের কয়েকটি হিন্দু ও মুসলমান বাড়ি।

১৯৭১ সালের ১ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল হায়দার চৌধুরী, সুবেদার আব্দুল মতিন, আ.ও.ম. শফিক উল্যা, হামদে রাব্বীর নেতৃত্বে প্রায় দেড় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা সাঁড়াশি অভিযান শুরু করে হানাদার বাহিনীর বিভিন্ন ক্যাম্পে। অবশেষে, ৪ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণ করে হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা।

লক্ষ্মীপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার হুমায়ুন কবির তোফায়েল বলেন, মুক্তির ৪৭ বছর পরেও এদেশের অলিগলিতে স্বাধীনভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে পাক-হানাদার বাহিনীর এ দেশীয় দোসররা। অথচ এরাই সেদিন পাকিস্তানিদের সাথে আঁতাত করে নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল। তাই জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এদের তালিকা করে অনতিবিলম্বে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানান তিনি।

Array ( [0] => /assets/news_photos/2018/12/04/image-43736.jpg )
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত