x

এইমাত্র

  •  বৈরুতে বিস্ফোরণে প্রাণহানির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক প্রকাশ
  •  মহামারি করোনাভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ৭ লাখ ১৭ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ৯২ লাখেরও বেশি
  •  ভারতে ২১ দিনে ১০ লাখ মানুষের করোনা শনাক্ত
  •  আবারো পাকিস্তানে ক্রিকেট ম্যাচে এলোপাতাড়ি গুলি

সব দেশের সুবিধার জন্যই তৈরি করতে হবে ভ্যাকসিন: ফাউসি

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০২০, ১৪:৪৩

সাহস ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসি বলেছেন, ‘ভ্যাকসিন তৈরি করাটা পুরো বিশ্বের জন্য একটি দায়িত্বপূর্ণ কাজ। এ দায়িত্ব কেবল যে দেশ ভ্যাকসিন তৈরি করছে, শুধু তাদের পাওয়ার জন্য নয়। সব দেশের সুবিধার জন্যই তৈরি করতে হবে ভ্যাকসিন।’

গত শুক্রবার (১০ জুলাই) ‘কোভিড-১৯ কনফারেন্স’ নামের এক ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে একথা বলেন ফাউসি।

ফাউসি বলেন, ‘ভ্যাকসিন তৈরির বিষয়টিকে বৈশ্বিক দায়িত্ব মনে করেই যুক্তরাষ্ট্র সরকার ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শত কোটি ডোজ তৈরির জন্য আলোচনা জোরদার করেছে। কিছু কোম্পানি এক বছরের মধ্যেই ১০০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।’

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে কয়েক ধরনের ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ হচ্ছে। এসব ভ্যাকসিন একেকটা একেক উপায়ে কাজ করে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজের পরিচালক ফাউসি বিভিন্ন ধরনের এই ভ্যাকসিন তৈরির প্রচেষ্টাকে হকি খেলায় বিভিন্ন ধরনের গোল দেওয়ার সঙ্গে তুলনা করেন। কিছু কিছু ক্ষেত্রে খুব দ্রুত এগিয়ে ঝটপট কাজ সেরে ফেলা যায়, কিছু কিছু ক্ষেত্রে আরও অধিক অভিজ্ঞতা লাগে এবং কিছু ক্ষেত্রে আগে পরীক্ষিত পদ্ধতি অনুসরণ করে এগোতে হয়।

ফাউসি বলেন, ‘এমআরএনএ ভ্যাকসিন এমনই একটি নতুন পদ্ধতির ভ্যাকসিন, যা দ্রুত তৈরির কাজ করছেন গবেষকেরা। কেমব্রিজের কোম্পানি মডার্না যুক্তরাষ্ট্রে গত মার্চ মাসে এমআরএনএ ভিত্তিক ভ্যাকসিনের প্রথম ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা শুরু করে। এ ভ্যাকসিন জেনেটিল উপাদান ব্যবহার করে কোষকে কীভাবে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে হয়, তা শেখায়। যা ভাইরাসের প্রোটিন ব্যবহার করে কোষকে লড়াই করতে শেখায়, তা তৈরিতে দীর্ঘ সময় লাগে। এটিও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়।’

‘কোভিড-১৯ কনফারেন্স’ ঘিরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশেষজ্ঞরা করোনাভাইরাস সংক্রান্ত হালনাগাদ তথ্য নিয়ে আলোচনা করেন।

ফাউসি আরও বলেন, ‘এ মুহূর্তে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে উপসর্গহীন ব্যক্তিদের কাছ থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়া ঠেকানোর বিষয়টি বের করা। এটাই বর্তমান পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলেছে।’

শুক্রবারের ওই অনুষ্ঠানে হোয়াইট হাউসের করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের ব্যবস্থাপক ডেবোরাহ ব্রিক্স উপসর্গহীন রোগীদের খুঁজে বের করার প্রতি গুরুত্ব দেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত