খুলনায় বন্ধুকে আটকে রেখে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৩

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:৪২

শেখ নাদীর শাহ্, খুলনা

খুলনায় বন্ধুকে আটক রেখে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত ৩ যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে নগরীর খালিশপুর এলাকার মদিনাবাগ আবাসিক এলাকায় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। সর্বশেষ ধর্ষণের শিকার হওয়া ওই কিশোরীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, নগরীর পাবলা সবুজ সংঘ মাঠ এলাকার মো: জয়নাল আবেদীনের ছেলে মো: মেজবাহ উদ্দীন, একই এলাকার মো: সুজন মোল্লার ছেলে মো: ইমন মোল্লা ও পাবলা বৈরাগীপাড়া এলাকার মোা: মাহারাজ চৌকিদারের ছেলে মো: শিমুল চৌকিদার।
খালিশপুর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গণধর্ষণের শিকার হওয়া কিশোরী নগরীর দৌলতপুর থানা এলাকার বাসিন্দা। তিনি ফুলবাড়িগেট আর্দশ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী। সোমবার সকালে বন্ধু মারুফের সাথে ঘুরতে বের হয় সে। একপর্যায়ে দৌলতপুর শামীম হোটেলে অবস্থানের সময় মারুফ তার বন্ধু ও ফুফাতো ভাই মেজবাহকে ফোন দিলে ফোনের বিপরীত থেকে তারা ভাবীকে তাদের কাছে ঘুরতে যেতে বলে।


এর পর ভিকটিমের বন্ধু মারুফ ফোন পেয়ে তাকে নিয়ে বেলা সোয়া ১১ টার দিকে ইজিবাইক যোগে দৌলতপুরের পাবলা সবুজ সংঘ মাঠের দিকে যায়। তখন মেজবাহ তার অপর দু'বন্ধু জয়নাল ও শিমুলকে সাথে নিয়ে ইজিবাইকে খালিশপুর মদিনাবাগ এলাকার একটি বাড়িতে নিয়ে গিয়ে মারুফের কাছে মেজবাহ টাকা দাবি করে। তার কাছে টাকা না থাকায় দুজনকেই আটকে রেখে উল্লেখিত যুবকরা তার বান্ধবীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। পরে তাদের দুজনকে মারধর ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়।


খালিশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো: জাহাঙ্গীর জানান, আসামি মেজবাহ মারুফের বন্ধু ও ফুফাতো ভাই। ঘটনার পর মেয়েটির বাবা থানায় অভিযোগ করলে আসামি তিনজনকেই আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি তিনজনই ধর্ষণের দায় স্বীকার করেছে। সর্বশেষ তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?