জামালপুরে চাহিদার চেয়ে কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি

প্রকাশ : ০৫ জুলাই ২০২২, ১৪:১৯

মশিউর রহমান, জামালপুর

আগামী ১০ জুলাই রবিবার মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। হাজার বছরের ঐতিহ্য অনুযায়ী ঈদুল আজহার দিনে মুসলমানেরা যার যার সাধ্য অনুযায়ী পশু কোরবানি করে থাকে। সারাদেশে পশুর হাট গুলো এখন পূর্ণ হয়ে উঠতে শুরু করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় কোরবানির পশুর হাট জমে উঠেছে জামালপুরেও। স্থায়ী হাট ছাড়াও অসংখ্য অস্থায়ী পশুর হাট বসা শুরু হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিক্রেতারা দাম একটু বেশি হাঁকছে বলে এখনো তেমন বেচা বিক্রি শুরু হয়নি।

জানা গেছে, জামালপুর জেলায় কোরবানি হতে পারে ৪৭ হাজার পশু। জেলায় যে পরিমাণ কোরবানিযোগ্য পশু আছে তা দিয়ে জেলার চাহিদা মিটিয়ে অতিরিক্ত আরো অন্য জেলায় পাঠানো সম্ভব। বরাবরই দেখা যায়, প্রতিবছর কোরবানির সময় অসংখ্য পশু ঢাকায় কিংবা আশেপাশের অন্য জেলায় বিক্রির জন্য পাঠানো হয়। তবে বেশী বেশী পশু অন্যত্র পাঠানো হলে জেলায় সামান্য সংকট তৈরি হতে পারে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কোরবানির পশুর ব্যবসার সাথে জড়িত এবং কয়েকজন খামারির সাথে কথা বলে জানা গেছে, বরাবরের মতো এবারও অসংখ্য কোরবানির পশু ঢাকায় বিক্রির জন্য ধাপে ধাপে পাঠানো হবে। দামের উপর নির্ভর করবে কি পরিমাণ পাঠানো হবে। জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ শহিদুল ইসলাম জানান, জেলায় কোরবানির পশুর চাহিদা ৪৭ হাজার। এদিকে কোরবানিযোগ্য পশু আছে প্রায় ৫৭ হাজার। দশ হাজার পশু চাহিদার চেয়ে উদ্বৃত্ত আছে।

সাহস২৪.কম/এএম/এসকে.

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?