নাটোরে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আহত ২০

প্রকাশ : ২২ নভেম্বর ২০২১, ১২:৫০

সাহস ডেস্ক

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে নাটোরে বিক্ষোভ সমাবেশ পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে।  আজ সোমবার (২২ নভেম্বর) সকাল ১০টায় শহরের আলাইপুর দলীয় কার্যালয়ের সামনে উত্তেজিত পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিএনপি নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ সমাবেশের এক পর্যায়ে সড়কের এক পাশ বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশ তাদের সড়ক ছেড়ে দিতে অনুরোধ করে। এতে বিএনপি নেতা-কর্মীরা উত্তেজিত হয়ে পুলিশের উপর হামলা করে ও তাদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে।

নাটোর জেলা বিএনপির সহসভাপতি ছাবিনা ইয়াসমিন ছবি অভিযোগ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে অনশন কর্মসূচি পালন করতে গেলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বেধে যায়। তারা বিএনপি নেতা কর্মীদের বেধড়ক মারধর, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে তাদের অনশন কর্মসূচি পণ্ড করে দেয়।

নাটোর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বাপ্পী লাহিড়ী বলেন, দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যুগান্তরের সাংবাদিক শহিদুল হোক সরকার ও বাংলাভিশনের কর্মী কামরুল আহত হয়েছে।

এ বিষয়ে নাটোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুনুসর রহমান জানান, বিএনপির অনশন কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য তারা নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলেন। এসময় বিএনপির নেতাকর্মীরা তাদের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি শুরু করেন এবং ইটপাটকলে নিক্ষেপ শুরু করেন। নেতাকর্মীদের হামলায় তিনিসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করতে পুলিশ লাঠিচার্জ, টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, রাস্তার ওপর বিএনপি নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ করতে নিষেধ করা হয়। এ সময় তারা উত্তেজিত হয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। এতে সদর থানার ওসি মুনসুর রহমানসহ কয়েকজন আহত হন। পরে পুলিশ লাঠিপেটা, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?