খালেদা জিয়া মৃত্যুর সংঙ্গে লড়ছেন, এর মধ্যে রাজনীতি আনবেন না: প্রধানমন্ত্রীকে ফখরুল

প্রকাশ : ১৮ নভেম্বর ২০২১, ১৬:৪৫

সাহস ডেস্ক

এভারকেয়ারের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন-তারা প্রাণপণ চেষ্টা করছেন। খালেদা জিয়া অসুখ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে দেশের বাইরে চিকিৎসা করানো খুব জরুরি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘তার (খালেদা জিয়া) জীবন রক্ষা করেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। এর সঙ্গে রাজনীতিকে নিয়ে আসবেন না।’

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, ডাক্তাররাই বলছেন, তাকে বিদেশে পাঠালে তিনি সুস্থ্য হবেন। এটা তারা (চিকিৎসকরা) আশা করেন। এখানে যে ধরনের চিকিৎসা ব্যবস্থা আছে, তা যথেষ্ট নয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন, উনার (খালেদা জিয়া) অসুখগুলো সারিয়ে তুলতে তারা পুরোপুরি সক্ষম নই।

তিনি বলেন, এমন ভয়াবহ দুঃসময় বাংলাদেশের ৫০ বছরের ইতিহাসে আর আসেনি। আজ গণতন্ত্র পুরোপুরি হারিয়ে গেছে। স্বৈরাচারী সরকারের প্রচণ্ড রকমের দমন-পীড়নের কারণে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের সব দিক ধ্বংস হয়ে গেছে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়া জীবন-মৃত্যুর সঙ্গে সংগ্রাম করছেন। তার বিদেশে চিকিৎসা করা সবচেয়ে জরুরি। এ কথা বরবার বলা হয়েছে। এখানের সবচেয়ে ভালো হাসপাতালও বলছে, তার অসুখগুলো সারিয়ে তুলতে তারা ইকুইপড নয়। খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার বিষয়ে অন্য দলগুলোও বলছে। শুধু আওয়ামী লীগ ও তাদের নেত্রী সম্পূর্ণভাবে সেটাকে গ্রহণ করছেন না।

তিনি বলেন, আবারও আহ্বান জানাতে চাই, অবিলম্বে বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানের ব্যবস্থা করেন। তার জীবন রক্ষা করেন। এর সঙ্গে রাজনীতিকে নিয়ে আসবেন না।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া একজন গৃহবধূ ছিলেন। ১৯৭১ সালে তিনি গৃহবন্দি ছিলেন। শুধু জনগণের অধিকার আদায়ের করার জন্য তিনি রাস্তায় বেরিয়ে এসেছিলেন। সেই নেত্রীকে আজকে অন্যায়ভাবে, বেআইনিভাবে একটা মিথ্যা মামলা সাজিয়ে আজকে আটকে রাখা হয়েছে বছরের পর বছর ধরে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দীর্ঘ আড়াই বছর তিনি নির্জন কারাবাসে ছিলেন। যার ফলে অনেকগুলো ব্যাধি তার শরীরে বাসা বেঁধেছে। সেখানে কোনো চিকিৎসার সুযোগ ছিল না। সে চিকিৎসা না দেওয়ার ফলে আজকে তার অনেক রোগ দেখা দিয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন, মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর দৌহিত্র মাহমুদুল হক প্রমুখ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?