ঘূর্ণিঝড় ইয়াশে ভোলায় ১১ হাজার ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত

প্রকাশ : ৩০ মে ২০২১, ০১:৫৮

সাহস ডেস্ক

ঘূর্ণিঝড় ইয়াশের প্রভাবে জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাসের আঘাতে দুর্গত চরাঞ্চচলের পরিবারগুলো এখন চরম সংকটে দিন কাটাচ্ছে। ইয়াস চলে গেলেও উপকূলের প্রায় ২৩ চরে তার ক্ষতবিক্ষত চিহ্ন রেখে গেছে। সহায়-সম্বল হারা পরিবারগুলো এখন চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. মোতাহার হোসেনের মতে, এই ঘুর্ণিঝড়ে ২৩টি চরে ১ লাখ ৭০ হার মানুষ দুর্যোগে আক্রান্ত হয়েছে। জেলায় ১১ হাজার ৩০৯টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

প্রাথমিক তথ্যে জানা যায়, ইয়াশের প্রভাবে দ্বীপজেলা ভোলার সাত উপজেলার ৫১ ইউনিয়নের ৬৫৯টি গ্রাম আক্রান্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১১ হাজার ৩০৯টি পরিবার। গৃহহারা পরিবারের সংখ্যা ৩ হাজার ৫৭৯ ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত ৭ হাজার ৭৩০ পরিবার। এতে সরাসরি আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় পৌনে ২ লাখ মানুষ। জোয়ারে ভাসিয়ে নিয়েছে কয়েক হাজার গরু- মহিষ। নিম্নাঞ্চলের মানুষ সামান্য কিছু শুকনো খাবার পেলেও ঘুরে দাড়ানোর মতো কোন সহায়তা এখনো পৌঁছেনি তাদের কাছে।

এদিকে ঘরবাড়ির পরই বেশি ক্ষতি হয়েছে গবাদি পশুর। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৫০টি স্থানে প্রায় ১৬ বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। লবণ পানির  কারণে চরঞ্চালের পশুর মড়ক দেখা দিয়েছে।

শুক্রবার রাত থেকে জোয়ারের উচ্চতা কমলেও খাল-বিলে জলাবদ্ধতায়  থাকা নোনা পানির কারণে নানা সংকট দেখা দিয়েছে। এ মুহূর্তে মহিষ গরু নিয়ে বিপাকে পড়েছে চাষিরা। মিঠা পানি আর গৌখাদ্যের সংকট চরমে। ঢাল চর, কুকরি মুকরি ইউনিয়নের মতোই চর নিজাম, কলাতলির চর, চর জহির উদ্দিন, মদনপুর, নেয়ামতপুর, মাঝের চর ও ভোলার রাজাপুরের দুর্গত ক্ষতিগ্রস্তদের দুর্ভোগ যেন শেষ নেই।

ভোলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধগুলো আসন্ন্ অমাবস্যার আগেই সংস্কার করা হবে। জোয়ারের পানি যেন ঢুকতে না পারে তার জন্য কাজ শুরু করা হয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ইন্দ্রজিৎ কুমার মন্ডল জানান, শনিবার পর্যন্ত তারা ১৩৪টি পশু মারা যাওয়ার খবর পেয়েছেন। ক্ষয় ক্ষতির তালিকার কাজ চলছে। তবে দক্ষিণের চরগুলোতে নোনা পানির কারণে মহিষের বিভিন্ন অসুখ দেখা দিয়েছে। প্রয়োজন অনুযায়ী তাদের টিম চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

ভোলা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. মোতাহার হোসেন বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের চিহ্নিত করে তাদের কাছে শুকনো খাবার পৌঁছে দেয়া হয়েছে। যাদের ঘর সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নগদ টাকা ও ঢেউটিন বরাদ্দ করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা কি অবস্থায় আছে তা চিহ্নিত করার পর তাদের পুনর্বাসন করা হবে। আমাদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমান ত্রাণসামগ্রী রয়েছে। চাহিদার সাথে সাথে দিতে পারছি। আমাদের কোন ঘাটতি নেই।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?