x

এইমাত্র

  •  লন্ড‌নে নিজ বাসা থেকে অর্থমন্ত্রীর জামাতার মরদেহ উদ্ধার
  •  নুরের বিরুদ্ধে তথ্য-প্রযুক্তি আইনে শাহবাগ থানায় মামলা
  •  হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীরা দ্রুত মারা যাচ্ছেন: আইইডিসিআর
  •  জ্বর আসেনি, ভালো আছেন খালেদা জিয়া: চিকিৎসক
  •  লকডাউনের মেয়াদ আরও ৭ দিন বাড়তে পারে

শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি: ধাক্কা দেওয়া সেই কার্গো জাহাজ আটক

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৬:০৮

সাহস ডেস্ক

নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার মদনগঞ্জ কয়লাঘাট এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে সাবিত আল হাসান নামে মুন্সিগঞ্জগামী একটি লঞ্চ ডুবিয়ে ৩৪ যাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনায় ধাক্কা দেওয়া এসকেএল-৩ নামের মালবাহী জাহাজটি আটক করা হয়েছে। এ সময় জাহাজে থাকা ১৪ জন নাবিককেও আটক করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) দুপুর পৌনে ২টার দিকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া এলাকা থেকে পাগলা কোস্টগার্ড কার্গোটি আটক করে। বিআইডব্লিউটি-এর পরিচালক (নৌ নিরাপত্তা) ও তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব রফিকুল ইসলাম এ তত্থ্য নিশ্চিত করেছেন।

কোস্টগার্ড পাগলা স্টেশনের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট আশমাদুল ইসলাম বলেন, যাত্রীবাহী লঞ্চটিকে ধাক্কা দেওয়ার পর দ্রুত কার্গো জাহাজটি মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় চলে যায়। দুর্ঘটনার কিছুক্ষণ পর ঝড় শুরু হয়। কিন্তু ঝড়ের মধ্যেও কার্গোটি থামেনি। দ্রুত গতিতে কার্গোটি পালাতে থাকে। এরপর আটক ঠেকাতে কার্গোটির রং দ্রুততম সময়ের মধ্যে বদলে ফেলা হয়। বদলে ফেলা কার্গোটি গজারিয়ার কোস্টগার্ড স্টেশনের কাছাকাছি নোঙর করে রাখা হয়। সেখান থেকে কার্গো জাহাজ এসকেএল-৩ আটক করা হয়।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসন গণশুনানির আয়োজন করে। গণশুনানিতে লঞ্চডুবিতে বেঁচে যাওয়া লঞ্চটির একাধিক যাত্রী, প্রত্যক্ষদর্শীসহ প্রায় ২০-২২ জনের গণস্বাক্ষর নেওয়া হয়।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জ বিআইডব্লিউটি’র উপপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) বাবু লাল বৈদ্য বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় হত্যার উদ্দেশে বেপরোয়া গতিতে পণ্যবাহী জাহাজ চালিয়ে লঞ্চটি ডুবিয়ে ৩৫ জনের প্রাণহানি ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। তবে মামলায় আসামি হিসেবে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি।

এজাহারে কেন কার্গো জাহাজ এসকেএল-৩ এর নাম নেই, জানতে চাইলে মামলার বাদী বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তা বাবুলাল বৈদ্য বলেন, ভিডিও ফুটেজে কোথাও ওই জাহাজের নাম দেখা যায়নি। নিশ্চিত না হওয়ায় অজ্ঞাত কার্গো জাহাজের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তদন্তে অভিযুক্ত কার্গো জাহাজের নাম বেরিয়ে আসবে।

মামলার বাদী বাবু লাল বৈদ্য জানান, পেনাল কোড ২৮০, ৩০৪, ৩৩৭, ৩৩৮, ৪২৭, ৪৩৭ ধারাসহ ইনল্যান্ড শিপিং অর্ডিন্যান্স ১৯৭৬ এর ৭০ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। হত্যার উদ্দেশে এবং বেপরোয়া গতিতে নৌযান চালিয়ে ৩৫ জনকে হত্যা সংঘটিত করার অভিযোগ আনা হয়েছে। মামলায় আসামি হিসেবে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত