x

এইমাত্র

  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ২৪৮৭ জন, মৃত ৩৪ জন

সাহেদ করিম ১০ দিনের রিমান্ডে

প্রকাশ : ১৬ জুলাই ২০২০, ১২:৫৫

সাহস ডেস্ক

রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মোহাম্মদ সাহেদ এবং প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদ পারভজকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। একই মামলায় তার আরেক সহযোগীর তরিকুল ইসলাম ওরফে তারেক শিবলীর দ্বিতীয় দফায় সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম শুনানি শেষে রিমান্ডের এই আদেশ দেন।

এর আগে ডিবির পুলিশ পরিদর্শক গাফফারুল আলম সাহেদ, মাসুদ পারভেজ ও তারেক শিবলীকে আদালতে হাজির করে তাদের ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। তিনি উত্তরা পশ্চিম থানায় দায়ের হওয়া প্রতারণা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। শুনানি শেষে আদালত রিমান্ডের আদেশ দেন।

সাহেদের আইনজীবী নাজমুল বলেন, তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ প্রতারণা, বিশ্বাসভঙ্গ ও জালিয়াতির কথা বলেছে। আমরা তার পক্ষে জামিন আবেদন করেছিলাম। আমরা আদালতকে বলেছি জামিন চাওয়ার অন্যতম কারণ সাহেদ অসুস্থ। পাশাপাশি তার বাবা মারা গেছেন বলে তিনি শোকাহত। তিনি বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক, দেশ ছেড়ে কোথাও যাবেন না। তাই তাকে রিমান্ডে নেয়ার কোনো প্রয়োজন পড়ে না। তবে আদালত আমাদের আর্জি মঞ্জুর না করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে আজ আদালতে শুনানি চলাকালে সাহেদ আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে বললেন, আমি নিজেও করোনা রোগী। আমার বাবা করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। একমাত্র আমিই বেসরকারি হাসপাতালে করোনা রোগীর চিকিৎসা সেবা দেই। আমি এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নই।

তিনি বলেন, আমি দেড় মাস ধরে করোনায় আক্রান্ত। আমার বাবা করোনায় মারা গেছেন। আমি মার্চে প্রথম দিন যখন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যাই, তখন তারা আমাকে আমার হাসপাতালের লাইসেন্স নবায়ন করতে বলেন। তখন আমি বলি আমার লাইসেন্সের ঘাটতি আছে। তখন তারা বলে যে লাইসেন্স নবায়নের জন্য সোনালী ব্যাংকে টাকা জমা দেন। আমি তাদের কথা মতো টাকা জমা দেই। সারা দেশে করোনা চিকিৎসার কাজ বেসরকারিভাবে আমরাই শুরু করেছি। তারপরেও আমার সবগুলো প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করা হয়েছে।

এর আগে বুধবার (১৫ জুলাই) ভোর ৫টা ১০ মিনিটে সাতক্ষীরার দেবহাটা থানার কামালপুর গ্রামে লবঙ্গবতী খালের পাশে ইছামতী নদী থেকে র‍্যাবের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করে সাহেদকে। পলাতক অবস্থায় বেশভূষা পরিবর্তন করেন তিনি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিতে তার চুল সাদা থাকলেও কালো কন এবং গোঁফ কেটে ফেলেন। এরপর বোরকা পরে পালানোর চোষ্টা করেছিলেন। তার কাছ একটি একটি বিদেশি পিস্তলও উদ্দার করেছে র‍্যাব।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত