x

এইমাত্র

  •  ১৭-২৩ মে ‘লকডাউন’, প্রজ্ঞাপন জারি

করোনাভাইরাস ঝুঁকিতে সাতক্ষীরার তিন হাজারেরও বেশি গ্রাম ডাক্তার

প্রকাশ : ০৪ মে ২০২০, ০০:১২

করোনাভাইরাস আতঙ্কের কারণে সারা সাতক্ষীরার সরকারি বেসরকারি হাসপাতাল, প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক যেখানে সাধারণ রোগী দেখা বন্ধ করে দিয়েছে। সেখানে সাতক্ষীরা জেলার পল্লী চিকিৎসকরা, গ্রাম ডাক্তার (আরএমপি) ঝুঁকি নিয়ে নিয়মিত গ্রামের সাধারণ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন দিনে রাতে সবসময়। 

করোনা প্রতিরোধে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) ছাড়াই রোগীদের সেবা দিয়ে আসছেন তাঁরা। এতে করে চিকিৎসক, রোগীসহ সাধারণ মানুষ করোনা ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানা গেছে।

সরেজমিনে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলিপুর যেয়ে দেখা যায়, পল্লী চিকিৎসক আক্তারুল ইসলাম আক্তার নির্ভর যোগ্য সুরক্ষা উপকরণ ছাড়াই চিকিৎসা দিচ্ছেন রুগীদের। তার চেম্বারে আরও ৮-১০ জন রোগী রয়েছেন চিকিৎসা সেবা নেয়ার জন্য। তারা সরাসরি চেম্বার কক্ষেই ভিড় করে বসে আছেন। এসময় তার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, চেম্বার ছাড়াও বাড়িতে বাড়িতে যেয়ে রুগী দেখতে হয় আমাকে। গড়ে প্রতিদিন ২০ টি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রুগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছি। সরকার বা স্বাস্থ্য বিভাগের তরফ থেকে কোনো সহায়তা,সুরক্ষা উপকরণ না পাওয়ার কথাও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে কথা হয় গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতির সভাপতি গ্রাম ডাঃ মাহবুবুর রহমানের সাথে, তিনি বলেন করোনাভাইরাস ঝুঁকিতে রয়েছে জেলার তিন হাজারের উর্ধে গ্রাম ডাক্তার। তিনি বলেন জেলার শতকরা ৮০ জন রুগীকে প্রাথমিক ভাবে চিকিৎসা দিয়ে থাকে আমাদের গ্রাম ডাক্তারা। করোনা মোকাবেলায় সরকার ও স্বাস্থ্য বিভাগ আমাদের গ্রাম ডাক্তারদের দিকে নজর রাখছে না। আমাদের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ায় আহবান জানাচ্ছি। কারণ এখন গ্রাম অঞ্চলের বেশিরভাগ রোগীই জ্বর, ঠান্ডা, কাশিসহ করোনা লক্ষণ রয়েছে। তবে গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে সবাইকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে চিকিৎসা সেবা প্রদানের কথা বলা হয়েছে।

এছাড়া করোনা আতঙ্কে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা কমে যাওয়ার ফলে বেশিরভাগ রোগীই চিকিৎসা নিতে ভিড় করছেন পল্লী চিকিৎসকের দ্বারে। সারা দেশ কার্যত লকডাউনে থাকায় ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরের লোকজন এখন গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ কারণে গ্রামের চিকিৎসকদের রোগীর সংখ্যা বাড়ছে প্রতিনিয়ত। অথচ গ্রাম ডাক্তারগণ করোনাকে মোকাবেলা করছে ব্যক্তি সুরক্ষা উপকরণ পিপিই, গ্লাভস, মাস্ক এবং অন্য কোনো সাপোর্ট ছাড়াই তারা রোগীদের সেবা দিয়ে চলছেন নিরলসভাবে।

এব্যাপারে সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন হুসাইন সাফায়াত বলেছেন, আমরা গ্রাম ডাক্তারসহ সকলকেই করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতার সাথে কাজ করতে বলেছি। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখে তারা রুগীদের চিকিৎসা দিবেন। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে গ্রাম্য ডাক্তারদের জন্য কোনো সুরক্ষা উপকরণ দেওয়ার সুযোগ নেই বলেও জানান সিভিল সার্জন। 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত