x

এইমাত্র

  •  করোনাভাইরাসে নতুন আক্রান্ত আরও পাঁচজন
  •  করোনা: মক্কা-মদিনায় অনির্দিষ্ট কালের জন্য কারফিউ
  •  ঢামেকে আইসোলেশনে দু'জনের মৃত্যু, করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ
  •  করোনাভাইরাস: সতর্ক করে চিঠি লেখা ক্যাপ্টেনকে অপসারণ করলো মার্কিন নৌবাহিনী
  •  করোনোভাইরাস: সারাবিশ্বে আক্রান্ত সংখ্যা ১০ লাখের বেশি, মৃতের সংখ্যা ৫৩ হাজার ছাড়ালো

আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ ও শুনানি ২১ জানুয়ারি

প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারি ২০২০, ১৫:০২

সাহস ডেস্ক

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ ও শুনানির জন্য ২১ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। সংশ্লিষ্ট আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। ওই‌দিন মহানগর দায়রা জজ আদাল‌তে এ বিষ‌য়ে শুনা‌নি হ‌বে।

এরআগে, ১৩ জানুয়ারি মামলাটি ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বিচারের জন্য ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদ‌লির আ‌দেশ দেন। ওই‌দিনই প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠা‌নিকতা শে‌ষে বদ‌লি আদাল‌তে মামলা‌টি স্থানান্তর করা হয়। পরে বুধবার অ‌ভি‌যোগপত্র গ্রহ‌ণের দিন ধার্য ক‌রেন আদালত।

এদিকে পালিয়ে থাকা এজাহারভুক্ত আসামি মোর্শেদ অমত্য ইসলাম রবিবার (১২ জানুয়ারি) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইয়াসমিনের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানালে আদালত জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে গত ৩ ডিসেম্বর আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় পলাতক চার আসামি মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম, মোর্শেদ অমত্য ইসলাম ও মোস্তবা রাফিদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দেয় আদালত।

৫ জানুয়ারি আদালত চারজন পলাতক আসামিদের হাজির হওয়ার জন্য সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন প্রকাশে পুলিশকে আদেশ দিয়ে বলেছিল, ১৩ জানুয়ারির মধ্যে তারা হাজির না হলে তাদের অনুপস্থিতিতে বিচার শুরু হবে। ১৮ নভেম্বর ওই চারজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। গ্রেপ্তার-সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৩ ডিসেম্বর দিন ধার্য করা হয়।

১৩ নভেম্বর ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মো.ওয়াহিদুজ্জামান। অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে এজাহার নামীয় ১৯ জন এবং এজাহার বহির্ভূত ছয়জন।

এজাহারভুক্ত ১৯ জনের মধ্যে ১৭ জন এবং এজাহারবহির্ভূত ৬ জনের মধ্যে ৫ জনসহ মোট ২২ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযোগপত্রে ৬০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে এবং ২১টি আলামত ও ৮টি জব্দতালিকা আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে।

এজাহারনামীয় আসামিরা হলো মেহেদী হাসান রাসেল, অনিক সরকার, ইফতি মোশাররফ সকাল, মেহেদী হাসান রবিন, মেফতাহুল ইসলাম জিওন, মুনতাসির আলম জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির, মুজাহিদুর রহমান, মুহতাসিম ফুয়াদ, মনিরুজ্জামান মনির, আকাশ হোসেন, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মাজেদুল ইসলাম, শামীম বিল্লাহ, মোয়াজ আবু হুরায়রা ও এএসএম নাজমুস সাদাত।

এজাহারবহির্ভূত ৬ জন হলো ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, অমিত সাহা, মিজানুর রহমান ওরফে মিজান, শামসুল আরেফিন রাফাত, এসএম মাহমুদ সেতু ও রাফি। এর মধ্যে ১৬ জনের নাম হত্যা মামলার এজাহারে উল্লেখ ছিল। বাকিদের নাম তদন্তে উঠে এসেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত