x

এইমাত্র

  •  করোনায় আরও ৪২ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৩১১৪
  •  সবজি আগের মতোই চড়া, কমেছে মাছের দাম
  •  মহামারি করোনাভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ৫ লাখ ২৪ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ১০ লাখেরও বেশি
  •  আগস্টেই বাজারে আসতে পারে ভারতের ভ্যাকসিন
  •  সৌদি থেকে ফিরলেন ৪১৫ জন, মিসর গেলেন ১৪০ বাংলাদেশি

রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ড: রিফাতকে হাসপাতালে নিয়ে যান মিন্নি (নতুন ভিডিও)

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৫১

বরগুনা সদর জেনারেল হাসপাতালের প্রবেশদ্বারের একটি সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারণ করা বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের আরেকটি নতুন ভিডিও পাওয়া গেছে। ওই ফুটেজে দেখে গেছে, রিফাত শরীফকে দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে আহত করার পর, তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি একাই তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় রিকশায় করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ভিডিওটি ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) পাওয়া এই সিসিটিভি ফুটেজটি বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের সামনে দুইটি ক্যামেরা লাগানো। একটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ও বরগুনা জেলা পুলিশের অন্যটি। ভিডিওটি এই দুটি সিসিটিভি ক্যামেরার যেকোনও একটির।

ভিডিওতে দেখা যায়, গত ২৬ জুন সকাল ১০টা ২১ মিনিটে মিন্নি একাই একটি ব্যাটারিচালিত রিকশায় রক্তাক্ত ও অচেতন রিফাতকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে নিয়ে যান। এসময় সেখানে উপস্থিত এক যুবক রিকশার দিকে দৌড়ে যান। রিফাতের অবস্থা দেখে তিনি দৌড়ে হাসপাতালের ভেতরে গিয়ে একটি স্ট্রেচার নিয়ে রিকশার পাশে আসেন।

এ সময় সেখানে উপস্থিত অনেকেই এগিয়ে আসেন। এরপর রিকশা থেকে নামিয়ে অচেতন রিফাত শরীফকে স্ট্রেচারে করে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। এরপর মিন্নি হাসপাতালের সামনে উপস্থিত একজনের ফোন নিয়ে কল দিয়ে কারও সঙ্গে কথা বলেন। তিনি হাসপাতালের ভেতরে চলে যান। এর কিছু সময় পর মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর ও চাচা আবু সালেহ হাসপাতালে আসেন।

এরপর সকাল ১০টা ৩৮ মিনিটে হাসপাতালের সামনে একটি অ্যাম্বুলেন্স আসে। সেখানে রিফাত শরীফের বন্ধু মঞ্জুরুল আলম ওরফে জন ও তার কয়েকজন বন্ধু হাসপাতালের সামনে আসেন। তখন বেশ কিছুক্ষণ ফোনে কথা বলেন। ১০টা ৪৪ মিনিটে অক্সিজেন ও দুটি স্যালাইন লাগানো অবস্থায় রিফাত শরীফকে স্ট্রেচারে করে ওই অ্যাম্বুলেন্সে তোলা হয়। ১০টা ৪৯ মিনিটে বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ছেড়ে যায় অ্যাম্বুলেন্সটি।

গুরুতর আহত রিফাতকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসা দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন বরগুনার সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র টেকনিশিয়ান সুভাষ চন্দ্র।

তিনি বলেন, রিফাত শরীফকে যখন হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয় তখন আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে রিফাতের অবস্থা খুব খারাপ ছিল সেদিন। বিশেষ করে তার বাম পাশের ফুসফুস ধারালো অস্ত্রের আঘাতে দ্বিখণ্ডিত হয়ে যায়। এ কারণে সব ব্যবস্থা করেও তার জীবন সংকটাপন্ন হওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে রক্ত দেয়া হয়নি। তবে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রিফাতকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসক।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত