সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার দুই বছর পর চলে গেলেন শুভ্রজিৎ

প্রকাশ : ০৪ মার্চ ২০১৯, ১৬:১৬

সাহস ডেস্ক

ঢাকা থেকে সড়ক পথে পিরোজপুরে আসার সময় ২০১৭ সালে পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি শুভ্রজিৎ হালদার বাবু ভাংগা-গোপালগঞ্জ সড়কের কাশিয়ানী উপজেলার মাজরা নামক এলাকায় এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত দুই বছরের বেশি সময় চিকিৎসাধীন অবস্থায় থেকে না ফেরার দেশে চলে যান।

শনিবার (২ মার্চ) দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে চলে যান। পিরোজপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময় থেকেই রাজনৈতিক অঙ্গনে পদচালনা শুরু করে। বাবু পিরোজপুর পৌরসভার আলামকাঠী এলাকার অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসক সমরজীৎ হালদারের একমাত্র ছেলে।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শুভ্রজিৎ হালদার বাবুর অকাল মৃত্যুতে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম গভীর শোক জানিয়েছেন। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সাংসদ এ কে এম এ আউয়াল, পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মালেক সহ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীসহ শহরের সর্বস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৮ জানুয়ারি ঢাকা থেকে পিরোজপুরে আসার পথে সে সময়ের ছাত্রলীগ সভাপতি শুভ্রজিৎ হালদার বাবু ভাংগা-গোপালগঞ্জ সড়কের গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার মাজরা নামক এলাকায় এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে জ্ঞান হারায়। বাবুকে বহনকারী প্রাইভেট কারের সাথে একটি কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাইভেট কারের চালক ফরিদ সেখ (৩০) নিহত হয়। গাড়িতে অবস্থানরত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শুভজিৎ হালদার বাবু, সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম মিঠু ও মাসুমসহ তিনজন গুরুতর আহত হন। আহতদের প্রথমে কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ওই দিনই শুভজিৎ হালদার বাবু কে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স যোগে ঢাকার সিএমএমএইচ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে বাবু দীর্ঘদিন ভারতে চিকিৎসায় ছিলেন। সেখান থেকে গত কয়েকমাস আগে দেশে এনে চিকিৎসা করানো হচ্ছিল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?