x

এইমাত্র

  •  সাহস২৪.কম এর পথচলার ৫ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সকল পাঠক-লেখক-বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাই প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা

প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা পদ্ধতি থাকা উচিত: ড. আকবর আলী খান

প্রকাশ : ১২ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:০১

সাহস ডেস্ক

কোটা কোন চিরস্থায়ী ব্যবস্থা নয়, তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা পদ্ধতি থাকা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান। আকবর আলী খান বলেন, প্রতিবন্ধীদের চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে তাদের শারীরিক সক্ষমতা, উপযুক্ত কর্মপরিবেশ এবং অনুকুল অবকাঠামো বিবেচনায় নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি খাতে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

শুক্রবার (১২ অক্টোবর) ব্র্যাক সেন্টারে প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা সংরক্ষণ নিয়ে আয়োজিত ছায়া সংসদ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন আকবর আলী খান।

এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম এর উদ্যোগে যুব সম্মেলন-২০১৮ এর অংশ হিসেবে  নাগরিক প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ এবং ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়।

বিতর্ক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচায, সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার এবং গ্রাম বিকাশ সহায়ক সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মাসুদা ফারুক রত্না।

অনুষ্ঠানে ড. আকবর আলী খান বলেন, প্রতিবন্ধীদের অধিকার বিষয়টিকে করুণার দৃষ্টিতে দেখার পরিবর্তে অধিকারের দৃষ্টিতে দেখা প্রয়োজন। শুধু সরকারি চাকরি নয়, বেসরকারি খাতেও প্রতিবন্ধীদের কর্মসংস্থানের বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে।

সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, চাকরিতে কোটার প্রয়োজন আছে। তবে একই সাথে প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা সংরক্ষণের পাশাপাশি সমাজকেও প্রতিবন্ধী বান্ধব হতে হবে।

আয়োজক সংগঠন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ সরকারি চাকরিতে প্রতিবন্ধীদের জন্য বাতিল করা কোটা পুনরায় বহালের দাবি করে বলেন, প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রয়োজনীয় কর্মসংস্থান, উপযোগী কর্মপরিবেশ, গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষা, উপযুক্ত প্রশিক্ষণ, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত করা জরুরি।’ কিরণ আরও বলেন, ‘প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষায় নাগরিক সচেতনতা বৃদ্ধি করাসহ ইতিবাচক সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। আর তাই প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীকে মূলধারায় সম্পৃক্ত করে টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে তাদের জন্য বিশেষ সুবিধা প্রদান করতে হবে।

বিতর্ক অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ইডেন মহিলা কলেজের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে। অনুষ্ঠান শেষে বিতার্কিকদের ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত