x

এইমাত্র

  •  সাহস২৪.কম এর পথচলার ৫ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সকল পাঠক-লেখক-বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাই প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা

১৯ জেলায় সকল সরকারি কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:৩৯

সাহস ডেস্ক

ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র কারণে উপকূলীয় ১৯ জেলায় সকল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ উপলক্ষে সার্বিক পরিস্থিতি ও প্রস্তুতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশের দিকে এলে বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, খুলনা, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, ভোলা, চাঁদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর এবং শরিয়তপুর জেলায় ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে। এ কারণে এসব জেলার সরকারি কর্মকর্তাদের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল ঘোষণা করেছি।

ঘূর্ণিঝড়টির সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে মন্ত্রী বলেন, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি, ‘তিতলি’ বাংলাদেশ থেকে সরে গিয়ে ভোর রাতে গোপালপুরের কাছ দিয়ে ভারতের উড়িষ্যা ও অন্ধ্র প্রদেশের উপকূল অতিক্রম করেছে। আমরা এ যাত্রায় রক্ষা পেয়েছি। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ক্ষণে ক্ষণে পরিবর্তন হয়। তাই আমরা শঙ্কামুক্ত- সেটা আমরা বলবো না। আমাদের যে প্রস্তুতি ছিল ঘূর্ণিঝড় শেষ না হওয়া পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকবে।

১৯ জেলার জেলা প্রশাসনকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয়ে নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র খোলা হয়েছে, সব সময় এসব জেলার সঙ্গে কর্মকর্তারা যোগাযোগ রাখছেন। যেকোনো ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য আমাদের শতভাগ প্রস্তুতি রয়েছে। ওই ১৯ জেলার বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যদি আঘাত করে তাদের যেন নিরাপদে সেখানে নিতে পারি।

মন্ত্রী বলেন, ওই ১৯ জেলার বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যাতে প্রয়োজন হলে মানুষকে সেখানে নেওয়া যায়। শুকনা খাবার প্রস্তুত রাখা হয়েছে, চাওয়া মাত্র সেগুলো পাঠিয়ে দেওয়া হবে। প্রত্যেক জেলায় ২০০ টন চাল মজুদ রয়েছে। এছাড়া টিন, নগদ টাকা ও শীতবস্ত্র আগেই ডিসিদের দিয়ে রেখেছি।

সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ্ কামাল, ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহমেদ খান, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের ডিজি (অপারেশন্স অ্যান্ড প্ল্যান) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এজাজুল বারী চৌধুরী, আবহাওয়া অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সামসুদ্দিন আহমেদ, সিপিপির পরিচালক আহমাদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত